সারা দেশে হরতালের ডাক দিলেও এই কর্মসূচির সমর্থনে রাজধানীতে বিএনপি জোটের নেতা-কর্মীদের মাঠে নামতে খুব একটা দেখা যায়নি। হরতালের সমর্থনে কয়েকটি ঝটিকা মিছিল ছাড়া তেমন কোনো তৎপরতা চোখে পড়েনি।
গাজীপুরে সমাবেশ করতে না দেওয়ার প্রতিবাদ ও দলের নেতা-কর্মীদের মুক্তির দাবিতে আজ সোমবার সারা দেশে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালন করছে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোট।
আজ সকালে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী দাবি করেন, সারা দেশে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটের ডাকা সকাল-সন্ধ্যার হরতাল স্বতঃস্ফূর্তভাবে পালিত হচ্ছে। তাঁর অভিযোগ, বিভিন্ন জায়গায় সরকারের পেটোয়া বাহিনী ও পুলিশ গুলি ছুড়ছে। গণতান্ত্রিক কর্মসূচি পালনে অবৈধভাবে বাধা দিচ্ছে। সারা দেশে পুলিশ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী নেতা-কর্মীদের গ্রেপ্তার করছে। মিরপুরের পল্লবীতে যুবদল-স্বেচ্ছাসেবক দলের মিছিলে পুলিশ গুলি করেছে। এতে স্বপন নামের স্বেচ্ছাসেবক দলের একজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, স্বপনের মাথার পেছনে ছররা গুলি লেগেছে।
রিজভীর দাবি, হরতালকে কেন্দ্র করে যে নাশকতা হয়েছে, এর সঙ্গে বিএনপি বা জোট জড়িত নয়। সরকারের লোকজনই এর সঙ্গে জড়িত।
হরতালের সমর্থনে তেমন কোনো তৎপরতা না থাকলেও সকাল থেকে রাজধানীতে যানবাহন চলাচল ছিল কম। যাত্রাবাড়ী, সায়েদাবাদ, মতিঝিল, গুলিস্তান, পল্টন, শাহবাগ, কারওয়ান বাজার, মিরপুর এলাকা ঘুরে দেখা যায়, সকাল থেকে কিছু বাস-মিনিবাস চলাচল করছে। এ ছাড়া সড়কে সিএনজি অটোরিকশা, রিকশা চলাচল করছে। তবে অন্য দিনের তুলনায় তা কম। দুপুরের দিকে যান চলাচল বাড়তে দেখা যায়। বেলা সোয়া একটার দিকে কারওয়ান বাজার এলাকায় যানজট সৃষ্টি হতেও দেখা যায়।
বিএনপির নেতা-কর্মীরা না থাকলেও রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসহযোগী সংগঠনগুলোর নেতা-কর্মীরা দফায় দফায় হরতালবিরোধী মিছিল করেছেন।
রাজধানীতে বিএনপি জোটভুক্ত দলগুলোর কেন্দ্রীয় নেতাদের তেমন কাউকে রাজপথে দেখা যায়নি। ঢাকা মহানগর বিএনপি, ছাত্রদল-যুবদলেরও বড় কোনো জমায়েত বা সভা-সমাবেশ-পিকেটিং ছিল না। দলটির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আজ ভোরে নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ঢোকেন। সেখানে আগ থেকেই ছিলেন দপ্তরের দায়িত্বে থাকা যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী ও অর্থনীতি বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সালাম।
সকাল থেকে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় এলাকায় বিপুল পুলিশ মোতায়েন করা হয়। এই এলাকায় বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের কোনো মিছিল বা পিকেটিং হয়নি। এই এলাকা থেকে পুলিশ ছয়জনকে আটক করেছে। পল্টন থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সুশঙ্করের ভাষ্য, সন্দেহজনকভাবে ঘোরাঘুরি করায় তাঁদের আটক করা হয়। তাঁদের পল্টন থানায় রাখা হয়েছে। তাঁরা হলেন আলামিন, ওবায়দুল, কবির, রিয়াজ, ইব্রাহিম ও কালু।
রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ মোড়গুলোয় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মোতায়েন করা হয়েছে। পুলিশ, আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন সদস্যদের পাশাপাশি র‍্যাবের সদস্যরা বিভিন্ন স্থানে টহল দিচ্ছেন।
হরতালের মধ্যেই কর্মজীবী মানুষকে কাজে বের হতে দেখা গেছে। সকাল সাতটার দিকে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকার মো. হাফিজুর রহমান জানান, তিনি গুলশানে তাঁর অফিসে যাবেন। হরতালের গাড়ি পেতে সমস্যা হতে পারে, এ শঙ্কায় আগেই বের হয়েছেন।
ঢাকার বাইরে নারায়ণগঞ্জে ঢিলেঢালাভাবে হরতাল পালিত হচ্ছে। চাষাড়া, শিবু মার্কেট, জালকুড়ি, সাইনবোর্ড এলাকায় দেখা যায়, সড়কে মিনিবাস, সিএনজি অটোরিকশা, অটোরিকশা, ট্রাক চলাচল করছে। তবে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ সড়কপথে কাউন্টার সার্ভিস বাসের কাউন্টার সকাল সাতটা পর্যন্ত বন্ধ দেখা গেছে।
নারায়ণগঞ্জের চাষাড়া শহীদ মিনার এলাকায় দায়িত্বরত কর্মকর্তা সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) রাজুর দাবি, নারায়ণগঞ্জের প্রতিটি গুরত্বপূর্ণ মোড়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সতর্ক অবস্থানে রয়েছে। এখন পর্যন্ত কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।
হাসপাতাল ও পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, হরতালের আগে গতকাল রোববার রাত আটটার দিকে রাজধানীর মিরপুরের কাজীপাড়ায় একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশায় পেট্রল ঢেলে আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় শামসুন্নাহার (৪৫), তাঁর ছেলে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র তানজিমুল হক (২৫) ও মেয়ে আনিকা আক্তার (১৮) দগ্ধ হন। তাঁদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। এ ছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে ও পুরানা পল্টনে একটি বাসে আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা।

আরও  জানতে পড়ুন:

বিজ্ঞাপন
রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন