বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থগিত হওয়া ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যে আছে বাগেরহাটের ৬৮টি, খুলনার ৩৪টি, সাতক্ষীরার ২১টি, নোয়াখালীর ১৩টি, চট্টগ্রামের ১২টি এবং কক্সবাজারের ১৫টি।
২১ জুন মোট ৩৬৭টি ইউনিয়ন পরিষদের ভোট অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। ১৬৩টি স্থগিত হলেও বাকি ২০৪টিতে ভোট যথাসময়ে হবে। ভোট স্থগিত হওয়া এলাকাগুলোয় স্থানীয় সরকারের সব ধরনের নির্বাচনও স্থগিত থাকবে।

নির্বাচন কমিশনের বৈঠক শেষে কমিশনের সচিব হুমায়ুন কবীর খোন্দকার সাংবাদিকদের এসব কথা জানান। করোনা সংক্রমণের মধ্যে ভোটগ্রহণ হলে সেসব এলাকায় যদি সংক্রমণ বেড়ে যায় তাহলে এর দায় কে নেবে জানতে চাইলে ইসি সচিব কোনো উত্তর না দিলেই চলে যান।

এর আগে কমিশনের বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা। এ সময় অন্যান্য কমিশনার ও ইসির জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন