default-image

জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান ও সংসদে বিরোধীদলীয় উপনেতা জি এম কাদের সংবিধান থেকে ৭০ অনুচ্ছেদ উঠিয়ে দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘এর ফলে একনায়কতন্ত্রের ব্যবস্থা করা হয়েছে।’

উপজেলা দিবস উপলক্ষে আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের মাওলানা আকরম খাঁ হলে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় জি এম কাদের এ কথা বলেন। জাতীয় ছাত্র সমাজ এই আলোচনা সভার আয়োজন করে।

জি এম কাদের বলেন, ‘অনেকেই এরশাদকে স্বৈরাচার বলে থাকেন। কিন্তু সংসদীয় ব্যবস্থা চালু করে ৭০ অনুচ্ছেদ দিয়ে সাংবিধানিকভাবে একনায়কতন্ত্রের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এর ফলে সংসদে কেউ দলের বিপক্ষে ভোট দিতে বা মত প্রকাশ করতে পারেন না। তাই সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদ উঠিয়ে দিতে হবে।’

বিজ্ঞাপন

বিরোধীদলীয় উপনেতা বলেন, ‘জনগণের শাসন প্রতিষ্ঠায় দেশে প্রাদেশিক সরকার ব্যবস্থা প্রবর্তন এবং দেশকে আটটা প্রদেশে ভাগ করতে হবে। আনুপাতিক হারে নির্বাচনে যে দল যত ভোট পাবে, সেই দল সংসদে ততটা আসন পাবে—এ ব্যবস্থা প্রবর্তন করত হবে। এরশাদ প্রবর্তিত উপজেলাপদ্ধতি পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন করতে হবে। পূর্ণাঙ্গ উপজেলাপদ্ধতি বাস্তবায়ন করতে আদালতকেও উপজেলা পর্যায়ে আনতে হবে।’

সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী কোনো সাংসদ সংসদে তাঁর দলের বিপক্ষে ভোট দিলে তাঁকে সংসদ সদস্যপদ হারাতে হয়।

এখন যাঁরা উপজেলা প্রতিনিধি নির্বাচিত হচ্ছেন, তাঁরা নিজেদের মতো কাজ করতে পারেন না, বলে দাবি করেন জিএম কাদের। তিনি বলেন, উপজেলা প্রতিনিধিদের অধীনেই সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাজ করতে হবে। এতে আমলা ও সরকারি কর্মকর্তাদের ভয়ের কিছু নেই। রাজনীতিবিদেরা খারাপ কাজ করলে জনগণ ভোট দিয়ে তার জবাব দেবেন।

আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন জাতীয় পার্টির সাংসদ শামীম হায়দার পাটোয়ারী, নুরুল ইসলাম তালুকদার প্রমুখ।

মন্তব্য পড়ুন 0