শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী ও তাঁর পক্ষের ১০ জনকে দল থেকে বহিষ্কারের সুপারিশ করা হয়েছে। গত শনিবার উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটি জরুরি সভা করে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
গতকাল সোমবার উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক আবুল হাসেম খানের সই করা সংবাদবিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এ উপজেলা পরিষদে চেয়ারম্যান পদে দুজন প্রার্থী হয়েছেন। এর মধ্যে আবুল হাসেম খান আওয়ামী লীগের প্রার্থী। দলটির বিদ্রোহী প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আখলাক হায়দার। আগামী রোববার চতুর্থ ধাপে এ উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে ভোট নেওয়া হবে।

বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া ১০ নেতা হলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আখলাক হায়দার, অপর যুগ্ম আহ্বায়ক আবদুর রহমান রব, আবদুস সালাম ও জাকির হোসেন, সদস্য ফজলুল হক মুন্সী, মো. সফিউল্লাহ, রেজাউল করিম, সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, আল আমিন ও দেলোয়ার হোসেন। এর মধ্যে তিনজন বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তাঁরা হলেন ভারেল্লার আবদুর রহমান, পীরযাত্রাপুরের জাকির হোসেন ও মোকাম ইউপির ফজলুল হক।

জানতে চাইলে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন বলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের রেজল্যুশনের কপি পাওয়া গেছে। যাঁদের বহিষ্কার করা হয়েছে, তাঁদের চিঠি ডাকযোগে দেওয়া হয়েছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তির সূত্রে জানা যায়, শনিবার বিকেল চারটায় উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে কার্যনির্বাহী কমিটির জরুরি সভা হয়। এতে বলা হয়, ২২ মার্চ গণভবনে অনুষ্ঠিত দলের নীতিনির্ধারণী সভায় সভাপতি শেখ হাসিনা বিদ্রোহী প্রার্থী ও তাঁদের পক্ষে অথবা নৌকা মার্কার বিরোধিতাকারীদের সংগঠন থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কারের নির্দেশ দেন। সেই নির্দেশের আলোকে সভায় উপস্থিত দলীয় সদস্যদের মতামত অনুযায়ী ওই ১০ নেতাকে আওয়ামী লীগের সব পদ থেকে অব্যাহতি এবং তাঁদের চিরতরে আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এ সিদ্ধান্ত জেলা ও কেন্দ্রীয় কমিটিকে জানানোর জন্য রেজল্যুশন আকারে পাঠানোর সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।

আবুল হাসেম খান বলেন, দলীয় নেতা হিসেবে ওই ১০ জনকে বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।
এ বিষয়ে আখলাক হায়দার বলেন, ‘অনেকের জন্মের আগ থেকেই আমরা আওয়ামী লীগ করি। আমার বাবা বঙ্গবন্ধুর সহচর ছিলেন। আমাদের কারা বহিষ্কার করবে? নির্বাচনে আমার জনপ্রিয়তা দেখে ওঁরা এসব করছেন। ভোট সুষ্ঠু হলে ৯০ শতাংশ ভোট পাব। এগুলো নির্বাচনে প্রভাব ফেলবে না।’

বিজ্ঞাপন
রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন