বাংলা ছাড়া অন্য যেসব ভাষায় হজের খুতবা সম্প্রচার করা হবে, সেগুলো হলো ইংরেজি, ফরাসি, তুর্কি, মালয়, চীনা, উর্দু, ফারসি, রুশ ও হাউসা। এবার তালিকায় নতুন করে যুক্ত হওয়া চার ভাষা হচ্ছে স্প্যানিশ, হিন্দি, সোয়াহিলি ও তামিল।

হিজরি ক্যালেন্ডার অনুযায়ী, প্রতিবছর ৯ জিলহজ আরাফাতের ময়দানে হজের খুতবা দেওয়া হয়। আরাফাতের ময়দানেই মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) বিদায় হজের ভাষণ দিয়েছিলেন।

এ বছর হজের খুতবার বাংলা অনুবাদক হিসেবে মনোনীত হয়েছেন দুজন। তাঁরা হলেন মোহাম্মদ শোয়াইব রশীদ ও তাঁর সহকারী খলিলুর রহমান। শোয়াইবের বাড়ি চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলায়। শোয়াইব রশীদ মক্কার উম্মুল কুরা বিশ্ববিদ্যালয়ে হাদিসের ওপর পিএইচডি করছেন। তিনি আন্তর্জাতিক ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রামের শিক্ষক। এ ছাড়া তিনি ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের খতিব। তাঁর স্ত্রীও উম্মুল কুরা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করছেন। ব্যক্তিগত জীবনে শোয়াইব তিন মেয়ে ও এক ছেলের বাবা। খলিলুর রহমান মক্কার উম্মুল কুরা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আরবি ভাষা ও সাহিত্যে পিএইচডি করেছেন।

ই–গাইড

সৌদি আরবের হজ ও ওমরাহ–বিষয়ক মন্ত্রণালয় ১৪টি ভাষায় হজের ই-গাইড প্রকাশ করেছে। এসব ভাষা হচ্ছে আরবি, ইংরেজি, ফরাসি, স্প্যানিশ, তুর্কি, রুশ, ফারসি, উর্দু, বাংলা, বাহাসা ইন্দোনেশিয়া, মালয়, হাউসা, আমহারিক ও সিংহলি।

হজ ও ওমরাহ–বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ই-গাইড কীভাবে কাজ করে, তা ব্যাখ্যা করে একটি ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছে। গাইডবিষয়ক ওয়েবসাইটে (guide.haj.gov.sa) ভাষা নির্বাচন করতে হবে। চাইলে বিষয়গুলো দেখা যাবে বা অডিও শোনা যাবে। প্রয়োজনে ডাউনলোড করা যাবে। ‘আইওএস’ ও ‘অ্যানড্রয়েড’ যেকোনো মুঠোফোন থেকে ই-গাইড ব্যবহার করা যাবে।

ইসলাম থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন