default-image

সাধারণত ঈদের আগে কাজের চাপে দম ফেলার ফুরসত হয় না। এমনও হয়েছে, ঈদের আগের রাত পর্যন্ত চলেছে শুটিং, এরপর বাড়ি ফিরে নিতে হয়েছে ঈদ উদ্​যাপনের প্রস্তুতি। কিন্তু এবারের পরিস্থিতি ভিন্ন। করোনার কারণে বেশ কয়েক মাস হলো বাড়িতে আছেন নুসরাত ইমরোজ তিশা। ঘরের আর সব কাজের মতো রান্নাঘরেও এখন নিয়মিত যাতায়াত করা হচ্ছে। তাই এবারের বিশেষ আয়োজনে তিশা শোনালেন তাঁর হেঁশেলের গল্প। িলখেছেন আদর রহমান।

হেঁশেলের গল্প শুরু করার আগে একটা প্রেমের গল্প শোনাই। তখন চলছে সিক্সটি নাইন ধারাবাহিকের কাজ। নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী ও অভিনেত্রী নুসরাত ইমরোজ তিশার প্রেমের শুরু হয় সেই নাটকের সেট থেকেই। নাটকের শুটিংয়ের সময়ে তুমুল প্রেম চলছিল তাঁদের। চলছিল একে অপরের খেয়াল রাখা। সেই সময় তিশার জন্য ধূমপান ছাড়েন ফারুকী, সেই সঙ্গে কমিয়ে দেন গরুর গোশত খাওয়ার অভ্যাস। এখনো ফারুকীর স্বাস্থ্যের কথা ভেবে তিশার হেঁশেলে গরুর মাংস খুব কমই ঢোকে। এর আগে তিশা তাঁর বাবার স্বাস্থ্যের কথা ভেবে ছেড়েছিলেন চিনি। এই গল্পটা বলার কারণ হলো খাবার আর রান্নার বেলায় তিশার কাছে সবার আগে গুরুত্ব পায় স্বাস্থ্য। তাই হেঁশেলের গল্প বলতে গিয়েও নন্দিত এই অভিনয়শিল্পীর কথায় বারবার প্রাধান্য পেল স্বাস্থ্যকর খাবারের বিষয়টি। 

নুসরাত ইমরোজ তিশা পরিবারের সবার খুব আদরের। এখনো সময়ে সময়ে তিশার জন্য তাঁর মা রান্না করেন মেয়ের প্রিয় সব খাবার। একটা ফোন করলেই সরয়ার ফারুকীর বোনের বাসা থেকে রান্না করা খাবার চলে আসে। হাসতে হাসতে তিশা বলেন, ‘আমি যতটা না রাঁধুনি, তার চেয়ে বেশি ভালো খাবার মডিফায়ার। আম্মু বা আপুর হাতে রান্না করা খাবার এক দিন খাওয়ার পর, অন্য দিন এটার সঙ্গে নতুন কিছু যোগ করি। বানিয়ে ফেলি নতুন কিছু। আর সেটা খেয়েই সরয়ার মুগ্ধ হয়ে যায়। অনেক সময় ভেবে বসে আমি দারুণ কিছু বানিয়ে ফেলেছি।’

তবে আমরা রান্না করা খাবারের রান্না নয়, তিশার কাছ থেকে জেনেছি তাঁর একটি প্রিয় খাবারের রেসিপি। নিচে থাকল সেই রেসিপিটি। 

default-image

কাটা মসলায় গরুর মাংস
উপকরণ:
গরুর মাংস ২ কেজি, পেঁয়াজকুচি (মোটা করে কাটা) ৩ কাপ, বেরেস্তা ১ কাপ, আদা মিহি কুচি ২ টেবিল চামচ, রসুনকুচি ২ টেবিল চামচ, শুকনা মরিচের কুচি ৫টি, আস্ত জিরা ১ চা-চামচ, আধা ভাঙা গোলমরিচ ১০-১২টি, আস্ত কাঁচা মরিচ ৫-৬টি, দারুচিনি ৪ টুকরা, এলাচি ৪টি, লবঙ্গ ১০টি, তেজপাতা ২টি, চিনি ১ টেবিল চামচ, টক দই ১ কাপ, লবণ স্বাদমতো, ঘি ২ টেবিল চামচ, সরিষার তেল ১ কাপ, গরম পানি ২-৩ কাপ।

প্রণালি: মাংস ধুয়ে পানি ঝরিয়ে রাখতে হবে। বেরেস্তা ও কাঁচা মরিচ বাদে বাকি সব উপকরণ দিয়ে মাংস মাখিয়ে রাখতে হবে আধা ঘণ্টা। মাংস রান্নার হাঁড়িতে চিনি পুড়িয়ে সোনালি করে নিতে হবে। এরপর মাখানো মাংস ঢেলে ২ কাপ গরম পানি দিয়ে দিন। ঢাকনা দিয়ে মৃদু আঁচে রান্না করতে হবে। মাংস সেদ্ধ হয়ে নরম হলে তাতে পেঁয়াজ, বেরেস্তা ও কাঁচা মরিচ ফালি দিয়ে ঢেকে রেখে কিছুক্ষণ পরে চুলা বন্ধ করে দিতে হবে। এরপর নিশ্চিন্তে পরিবেশন করুন খাবারটি। 

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0