বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

প্রশ্ন: আবাহনীকে প্রথমবারের মতো এএফসি কাপের আন্ত–আঞ্চলিক পর্বের সেমিফাইনালে নিয়ে যাওয়া না স্বাধীনতা কাপের শিরোপা, কোনটিকে এগিয়ে রাখবেন?

লেমোস: স্বাধীনতা কাপের শিরোপাটা আগে থাকবে। এটি আমার প্রথম শিরোপা। আবাহনীরও ৩১ বছর পর স্বাধীনতা কাপের শিরোপা জয়। ফাইনালে জিতে ট্রফি উঁচিয়ে তোলার আনন্দটাই অন্য রকম।

প্রশ্ন: আগের ৬ ম্যাচে অস্কার ব্রুজোনের বসুন্ধরার বিপক্ষে আপনার কোনো জয় ছিল না। ম্যাচের আগে চাপ অনুভব করছিলেন?

লেমোস: বিষয়টি আমার জন্য খুব চ্যালেঞ্জের ছিল। সমালোচনা করে বলা হচ্ছিল ‘মারিও জিততে পারে না, মারিও জিততে পারে না।’ আপনি যখন বারবার একটা দলের বিপক্ষে হারবেন, কাজটি চালিয়ে যাওয়া কঠিন। নিজ থেকেই বাড়তি চাপ অনুভব করছিলাম। কালকের জয়ে পরিস্থিতি কিছুটা বদলাবে।

default-image

প্রশ্ন: ৩–০ গোলের জয় নিশ্চয়ই কল্পনা করেননি!

লেমোস: ধরে নিয়েছিলাম খুব কঠিন একটা ম্যাচ হবে। ভেবেছিলাম জয়–পরাজয় যা–ই হোক, সেটার ফলাফল হবে ১–০, ২–১ বা ম্যাচটি অতিরিক্ত সময়ে গড়াবে।

প্রশ্ন: ম্যাচ শেষে ব্রুজোনের সঙ্গে কী কথা হলো?

লেমোস: ম্যাচ শেষে আমাকে অভিনন্দন জানালেন। আমিও তাঁকে ধন্যবাদ জানাই। তাঁকে বললাম, ‘তোমার দুর্ভাগ্য দলের অনেক খেলোয়াড় চোটে পড়েছে। না হলে খুব জমজমাট একটা ম্যাচ হতে পারত!’

প্রশ্ন: বড় জয় আপনার দলেরই কৃতিত্ব। তবে প্রতিপক্ষ মিডফিল্ডার জোনাথন ফার্নান্দেজের না থাকাটাও কি একটা অন্যতম কারণ?

লেমোস: জোনাথন বড় মাপের খেলোয়াড়। তাঁকে না পাওয়াটা বসুন্ধরার জন্য খুব বড় ক্ষতি, এটা সত্য। তবে ম্যাচের মোড় ঘুড়িয়ে দিয়েছে ম্যাচে রাকিবের (হোসেন) প্রথম গোলটি। আমি বিরতিতেই বলেছিলাম, একটা গোল দিতে পারলে ম্যাচে অনেক গোলের সুযোগ আসবে। তা-ই হয়েছে। প্রথম গোলের পরই বসুন্ধরা ভড়কে যায়। রবসন ব্যক্তিগত নৈপুণ্যে ম্যাচে ফেরানোর চেষ্টা করেছে। কিন্তু ২–০ হওয়ার পর সেও মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে।

default-image

প্রশ্ন: বসুন্ধরার বিপক্ষে আগের ৬ ম্যাচে হারা দলের সঙ্গে বর্তমান দলটির পার্থক্য কোথায়? নিশ্চয় কলিনদ্রেসই মূল টোটকা!

লেমোস: এ দলে অনেক ভালো খেলোয়াড় যোগ হয়েছে। কলিনদ্রেসের মতো ম্যাচের পার্থক্য গড়ে দেওয়া খেলোয়াড় এসেছে। অনেক প্রতিকূলতার মাঝেও সে দলকে জেতানোর সামর্থ্য রাখে। ডোরিয়েলতন ও মিলাদ শেখের অন্তর্ভুক্তি শক্তি বাড়িয়েছে।

এবার রাফায়েল অগুস্তো আগেই দলের অনুশীলনে যোগ দেওয়ায় ভালো মানিয়ে নিয়েছে। একজনের পক্ষে রাফায়েলকে থামানো কঠিন কাজ। সে দলের কাঠামোটা ঠিক রাখে। এ ছাড়া ইমন বাবু, ফয়সাল (নুরুল নাঈম), সুশান্ত (ত্রিপুরা) এসেছে। এতে দলের গতি, ভারসাম্য ও জয়ের মানসিকতা বেড়েছে। ফাইনালসহ শেষ ৩ ম্যাচে কোনো গোল খাইনি। দুর্দান্ত খেলে তরুণ গোলকিপার প্রিতম আমাকে মুগ্ধ করেছে।

প্রশ্ন: গেল দুই মৌসুমে বসুন্ধরায় খেলার সুযোগ না পাওয়া ইমন বাবু, নুরুল নাঈম ও সুশান্ত ত্রিপুরাকে সেরা অবস্থায় ফিরিয়ে আনা কতটা কঠিন কাজ ছিল?

লেমোস: তারা খেলার জন্য ক্ষুধার্ত ছিল। আমি তাদের ক্ষুধাটা কাজে লাগানোর চেষ্টা করেছি। জানতাম তারা ফাইনালে পুরোনো দলের বিপক্ষে সেরাটা উজাড় করে দিয়ে প্রমাণ করতে চাইবে, তারা ভালো খেলোয়াড় ছিল। শেষ পর্যন্ত সেটাই তারা করেছে।

খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন