default-image

ব্রেট লির ভীষণ তাড়া। ম্যাচের ভাগ্য আগেই বুঝে ফেলে পরের দিনের ফ্লাইট এগিয়ে এনেছেন সন্ধ্যায়। এখনই বিমানবন্দরে ছুটতে হবে। কাঁধে ব্লেজার ঝুলিয়ে বেরিয়ে যাওয়ার আগে বললেন, ‘১ পয়েন্টের জন্য অভিনন্দন!’

তা অস্ট্রেলিয়াও তো ১ পয়েন্ট পেয়েছে। কে জানে, ম্যাচ না হওয়ায় বাংলাদেশ ১ পয়েন্ট কম পেল কি না! ব্রেট লির বোলিংয়ের মতো হাসিটাও খুব সুন্দর। কথাটা শুনে মুখে সেই হাসি, ‘তা তো ঠিকই!’ আসলে যে ঠিক নয়, তা বোঝাতে চোখ টিপলেন।
গ্যাবায় অস্ট্রেলিয়া-বাংলাদেশ ম্যাচকে ঘিরে দুই দিন থেকেই ‘১ পয়েন্ট’ কথাটা বাতাসে উড়ছে। কাল ব্রিসবেন সময় বিকেল সাড়ে চারটা নাগাদ সেটি আনুষ্ঠানিকভাবে নিশ্চিত হলো। অস্ট্রেলিয়া ১, বাংলাদেশ ১—এই ম্যাচ থেকে দুই দলের প্রাপ্তি সমান। মাইকেল ক্লার্ক আর সংবাদ সম্মেলনে আসেননি। স্টিভ স্মিথ এলেন মূলত নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে পরের ম্যাচ নিয়ে কথা বলতে। ‘১ পয়েন্ট’ নিয়েও প্রশ্ন হলো। ম্যাচটাকে কীভাবে দেখছেন, অস্ট্রেলিয়া ১ পয়েন্ট পেল না ১ পয়েন্ট হারাল? ঠোঁটে মৃদৃ হাসি ফুটিয়ে স্মিথ বললেন, ‘দুই দলই তো ১ পয়েন্ট করে পেয়েছে।’ অস্ট্রেলিয়ার জন্য যে পাওয়ার চেয়ে হারানোই বেশি, তা বুঝিয়ে দিতেই যোগ করলেন, ‘হতাশার তো বটেই। গ্যাবায় আমরা সব সময়ই ভালো খেলি।’

সকাল থেকে অঝোর ধারায় বৃষ্টির পরও কেউ কেউ আশার বিপরীতে আশা করছিলেন, ২০ ওভারের একটা ম্যাচ হয়েও যেতে পারে। বৃষ্টিটা একটু থামলেই হয়। গ্যাবার নিষ্কাশনব্যবস্থা এত ভালো যে, ঘণ্টা দেড়েকের মধ্যে খেলা শুরু করে দেওয়া সম্ভব। বৃষ্টি থামল বটে, তবে পরিহাসই বলতে হবে, সেটি ম্যাচ পণ্ড বলে ঘোষিত হওয়ার প্রায় সঙ্গে সঙ্গে।
অস্ট্রেলিয়ার আফসোসটা তাতে আরও একটু বাড়ল। গ্যাবায় এমনিতেই দারুণ রেকর্ড, প্রতিপক্ষ গতি আর বাউন্সে অনভ্যস্ত বাংলাদেশ। এই ম্যাচ থেকে ২ পয়েন্ট তো ধরে রাখাটাই তো স্বাভাবিক। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হলে কোয়ার্টার ফাইনালে সহজ প্রতিপক্ষ পাওয়া যাবে। অন্য স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড তো একটু এগিয়েই থাকল। মাইকেল ক্লার্ক আফসোস করতেই পারেন।
অস্ট্রেলিয়ানরা বিশ্বাস করুক আর না করুক, ম্যাচটা হলো না বলে মাশরাফি বিন মুর্তজারও আফসোস আছে। কাল সকালে সোফিটেল হোটেলের নাশতার টেবিলে যখন শুনলেন, আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে তাঁর কথা নিয়ে অস্ট্রেলিয়ান পত্রিকায় টীকাটিপ্পনী কাটা হয়েছে, একটু উত্তেজিত ভঙ্গিতেই বললেন, ‘কে কী বলল, কী লিখল, তাতে কিছু আসে যায় না। আমি মনের কথাই বলেছি।’ পাশেই বসা সাকিব ও তামিমকে দেখিয়ে বললেন, ‘ওরা

default-image

হয়তো একদিন না একদিন এখানে খেলতে পারবে। বাংলাদেশের হয়ে না হোক, বিগ ব্যাশে খেলবে। আমার তো আর গ্যাবায় খেলা হবে না।’
তা না হলেও এই ‘১ পয়েন্ট’ কিন্তু আসলেই বড় একটা ব্যাপার। মাশরাফির ব্যক্তিগত আফসোস ছাপিয়ে যা এই বিশ্বকাপে মহা তাৎপর্যময় হয়ে দেখা দিতে পারে। যেমন দেখা দিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডে ২৩ বছর আগের সর্বশেষ বিশ্বকাপে। পাকিস্তানের অলৌকিকভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে শিরোপা জেতার প্রসঙ্গ উঠলেই রমিজ রাজা একটা কথা বলেন, ‘আমার প্রথমেই মনে হয় অনেক লোক আমাদের জন্য প্রার্থনা করেছিল।’ ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৭৪ রানে অলআউট হয়ে যাওয়ার পরও পাকিস্তান ১ পয়েন্ট পেয়ে গিয়েছিল বৃষ্টির কল্যাণে। আরও নানা সমীকরণও ছিল, তবে শেষ পর্যন্ত পাকিস্তানের সেমিফাইনালে ওঠায় নির্ধারক হয়ে দাঁড়ায় ওই ১ পয়েন্টই।
‘এ’ গ্রুপের পয়েন্ট তালিকাটাকে এখন দারুণ দেখাচ্ছে। বাংলাদেশ ও অস্ট্রেলিয়া দুই দলেরই ৩। নেট রানরেটে অস্ট্রেলিয়া মাত্রই দশমিক ১২ এগিয়ে বলে তিন নম্বরে বাংলাদেশের নাম। সবার ওপরে নিউজিল্যান্ড। বাকি চার দলের পয়েন্টই শূন্য। বাংলাদেশের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে যাওয়ার স্বপ্নের পালে আরও জোর হাওয়া দিচ্ছে ইংল্যান্ডের দুর্দশা। স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে প্রত্যাশিত জয় আর তিনটি বড় ম্যাচের মধ্যে একটি জিতলেই তো মনে হচ্ছে হয়ে যাবে। সেটির সম্ভাব্য শিকার হিসেবে ইংল্যান্ডের নামই বেশি উচ্চারিত হচ্ছে।
অ্যাডিলেডে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ আগামী ৯ মার্চ। মাশরাফি অত দূর ভাবতেই রাজি নন। এমনকি স্কটল্যান্ড নিয়েও কথা বলতে চাইছেন না। তাঁর ভাবনাজুড়ে এখন শুধুই শ্রীলঙ্কা। ২৬ ফেব্রুয়ারি মেলবোর্নে যাদের বিপক্ষে পরের ম্যাচ। যেটিতে জয়ের সম্ভাবনা ফিফটি-ফিফটি বলাতেও আপত্তি করছেন, ‘ফিফটি-ফিফটি কেন, আমি তো বলব, আমরা আমাদের সেরা খেলাটা খেললে আমাদের শতভাগ জয়ের সম্ভাবনাই আছে।’
শ্রীলঙ্কাই হোক বা ইংল্যান্ড—কাউকে হারিয়ে বাংলাদেশ যদি কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে যায়, তাহলে ব্রিসবেনপ্রবাসী বাংলাদেশিরা তা-ও একটু সান্ত্বনা পাবে। এই ম্যাচের জন্য সেই কবে থেকে দিন গোনা! কত রকম প্রস্তুতি! একুশে ফেব্রুয়ারিতে খেলা। ম্যাচের আগে জাতীয় সংগীত বাজার পরই গ্যালারিতে সবাই মিলে ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো...’ গাওয়া হবে বলে ঠিক করে রেখেছিল একটা দল। সবই তো ধুয়েমুছে নিয়ে গেল বৃষ্টি। সবই কি?
একুশে ফেব্রুয়ারিতে শোক আছে, গৌরবও আছে। এমনও হতে পারে, বাংলাদেশের খেলা দেখতে না পাওয়ার ‘শোক’কে এই বিশ্বকাপে গৌরবের উৎস বানিয়ে দিল আরেকটি একুশে ফেব্রুয়ারি!


আজকের খেলা

শ্রীলঙ্কা-আফগানিস্তান
(ভোর ৪টা, ডানেডিন)
ভারত-দ. আফ্রিকা
(সকাল ৯-৩০ মি., মেলবোর্ন)

আগামীকালের খেলা
ইংল্যান্ড-স্কটল্যান্ড
(ভোর ৪টা, ক্রাইস্টচার্চ)

গতকালের ফল
ওয়েস্ট ইন্ডিজ: ৫০ ওভারে ৩১০/৬
পাকিস্তান: ৩৯ ওভারে ১৬০
ফল: ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৫০ রানে জয়ী

বিজ্ঞাপন
খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন