বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সর্বশেষ দেওয়া বিবৃতিতে ইসিবি বলেছে, ‘তাঁর ক্রিকেটে ফেরাটা সময়মতো ঠিক করা হবে, তবে জফরাকে এই শীতে ইংল্যান্ডের কোনো সিরিজে পাওয়া যাবে না।’

আগামী বছরের জুনে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তিন টেস্ট সিরিজ দিয়ে নিজেদের গ্রীষ্ম মৌসুম শুরু করবে ইংল্যান্ড। প্রথম টেস্ট শুরু হবে ২ জুন। এরপর নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে তিনটি ওয়ানডে, ভারতের বিপক্ষে সীমিত ওভারের সিরিজের সঙ্গে সর্বশেষ সিরিজে স্থগিত হওয়া পঞ্চম টেস্ট খেলার কথা আছে তাদের। এরপর দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তিনটি টেস্টের সঙ্গে তিনটি করে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিও খেলবে তারা।

২০২০ সালে প্রথম এই চোটে পড়ে দক্ষিণ আফ্রিকা সফর থেকে ছিটকে গিয়েছিলেন আর্চার। এরপর থেকে ইংল্যান্ডের হয়ে মাত্র ৬টি টেস্ট, ৩টি ওয়ানডে ও ১১টি টি-টোয়েন্টি খেলতে পেরেছেন ২৬ বছর বয়সী এই ফাস্ট বোলার। সর্বশেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচটি তিনি খেলেছিলেন এ বছরের মার্চে। সেবার ভারত সফর থেকে অন্য এক চোট নিয়ে দেশে ফিরেছিলেন আর্চার, হাত থেকে হাড়ের অবশিষ্টাংশ সরানোর জন্য অস্ত্রোপচারও করতে হয়েছিল। এরপর নিজেকে সরিয়ে নিয়েছিলেন আইপিএল থেকে।

default-image

গত মে মাসে প্রথম দফা অস্ত্রোপচারের পর কাউন্টি ক্লাব সাসেক্সের হয়ে ফিরেছিলেন আর্চার। তবে এরপরই ফিরে এসেছিল পুরোনো চোট, ফলে ছিটকে গিয়েছিলেন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ও অ্যাশেজ থেকে। তখন জানানো হয়েছিল, এ বছর আর ফেরা হবে না তাঁর।

২০১৯ বিশ্বকাপ ফাইনালের অন্যতম নায়কের অভাব স্বাভাবিকভাবেই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে টের পেয়েছে ইংল্যান্ড। শেষ পর্যন্ত সেমিফাইনালে নিউজিল্যান্ডের কাছে হেরে বিদায় নিয়েছিল এউইন মরগানের দল। চলতি অ্যাশেজেও আর্চারের বাড়তি গতি পাচ্ছে না ইংল্যান্ড। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে দুই টেস্টের পরই পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ২-০ ব্যবধানে পিছিয়ে জো রুটের দল।

খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন