‘ক্যাচ মিস তো ম্যাচ মিস’—ক্রিকেটে প্রবাদতুল্য এ কথার সত্যতা চলতি বিশ্বকাপে কখনো মিলছে, কখনো বা মিলছে না! কারণ, জয়ী-পরাজিত—উভয় দলই ছাড়ছে এন্তার ক্যাচ! কঠিন ক্যাচ ছাড়লে না হয় মানা যায়। তাই বলে লোপ্পা ক্যাচ! এ বিশ্বকাপে এমন ‘ডলি ক্যাচ’ হাতছাড়ার দৃষ্টান্ত এ রচনায়।

default-image

পিচ্ছিল হাতের এনামুল
শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মাশরাফি বিন মুর্তজার প্রথম ওভারের চতুর্থ বলটা লাহিরু থিরিমান্নের ব্যাট চুমু খেয়ে চলে গেল প্রথম স্লিপে দাঁড়ানো এনামুল হকের হাতে। তিন দফায় বলটা তালুবন্দী করতে পারলেন না এনামুল। থিরিমান্নের পাশে তখন যোগ হয়নি একটি রানও। যখন মাঠ ছাড়লেন তখন নামের পাশে লেখা ৫২ রান। ওই ক্যাচটা ধরতে পারলে ম্যাচের চেহারা অন্য রকম হলেও হতে পারত।

default-image

জামশেদের এমন ভুল!
ওয়েস্ট ইন্ডিজ-পাকিস্তান ম্যাচের ঘটনা। ক্যারিবিয়ানদের ইনিংসের পঞ্চম ওভারে মোহাম্মদ ইরফানের শর্ট বল পুল করে বাতাসে ভাসিয়ে দিলেন ওপেনার ডোয়াইন স্মিথ। থার্ড ম্যান থেকে দৌড়ে এসে বলটা তালুর মধ্যে আটকে রাখার প্রাণান্ত চেষ্টা করলেন নাসির জামশেদ। সে কী—বল হাতে নেই, মাটিতে! ১১ রানে ‘জীবন’ পাওয়া স্মিথের ইনিংসটা অবশ্য খুব বেশি বড়ও হয়নি সেদিন। ফিরেছেন ২৩ রানে।

default-image

হাসালেন গেইল
একই ম্যাচে ১৮তম ওভারে ড্যারেন স্যামির করা শর্ট বলটা বেশ জোরেই পুল করলেন উমর আকমল। বলটা সোজা চলে গেল শর্ট মিড উইকেটে দাঁড়ানো ক্রিস গেইলের হাতে। কোনো নড়াচড়া না করেই বলটা স্রেফ ধরেই রাখাই ছিল গেইলের কাজ। সহজ এ কাজটাই করতে পারলেন ক্যারিবীয় ওপেনার! বল হয়ে গেল চড়ুই পাখি, কার্নিশ ছুঁইয়ে মুহূর্তে উড়াল দিল অন্যখানে! আকমলের রান তখন ১৯। শেষমেশ পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান ফেরেন ৫৯ করে।

চাতারার ভুলে চড়া মূল্য
উইন্ডিজ ইনিংসের ১৭তম ওভারে সিকান্দার রাজার নিরীহ বলটা ওয়েস্ট ইন্ডিজের ওপেনার মারলন স্যামুয়েলস তুলে দিলেন ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে দাঁড়ানো টেন্ডাই চাতারার হাতে। স্যামুয়েলসের ‘উপহার’টা নিতে পারলেন না চাতারা! ‘ডলি ক্যাচ’ হাত গলে মুহূর্তেই ভূপাতিত মাটিতে! তখন স্যামুয়েলসের রান মোটে ২৭ । ইনিংস শেষে তিনি অপরাজিত ছিলেন ১৩৩ রানে!

দিলশানের ‘উপহার’
গতকাল এমসিজিতে বাংলাদেশের ফিল্ডাররা যথেষ্ট ‘উদারতা’ দেখিয়েছিলেন শ্রীলঙ্কার ব্যাটসম্যানদের। লঙ্কান ফিল্ডারারও ‘সৌজন্যতা’র খাতিরে কিনা পাল্টা উদারতা দেখালেন! ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে সুড়ঙ্গ লাকমলের বলটা বাতাসে ভাসিয়ে দিলেন এনামুল। মিড অফ-কাভারের মধ্যবর্তী জায়গায় ক্যাচটা হাতছাড়া করলেন তিলকরত্নে দিলশান। কোনো রান পাওয়ার আগেই এমন জীবন পেয়েও ইনিংসটা লম্বা করতে পারেননি এনামুল। ফিরেছেন ২৯ রানে।

বিজ্ঞাপন
খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন