কোহলির সময়টা এমনিতে খুব একটা সুবিধার যাচ্ছে না। প্রায় আড়াই বছর ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে শতকের দেখা পাননি ভারতের সদ্য সাবেক অধিনায়ক। তবে রেকর্ড বিবেচনায় সময়ের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান তিনি, তা নিয়ে তো কোনো সংশয় নেই। পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক ওয়াসিমও তাই প্রস্তুতই থাকতেন তাঁর বিপক্ষে।

নাশপাতি প্রাইমের ‘টু বি অনেস্ট’ নামের এক শোতে ওয়াসিম বলেছেন কোহলির বিপক্ষে বোলিংয়ের সময় তাঁর পরিকল্পনা কী থাকত, ‘আমার আত্মবিশ্বাস থাকত অনেক। যদি সে তিন বা চারে ব্যাটিংয়ে আসে, তার মানে ২টি উইকেট পড়ে গেছে। ফলে ক্রিজে নতুন সে, আমি তখন আক্রমণ করতাম। বলকে মিডল স্টাম্পে ফেলতাম, এরপর হয় সুইং করে বেরিয়ে যেত অথবা ভেতরে ঢুকত।’

কোহলি এ মুহূর্তে আছেন ইংল্যান্ডে, লেস্টারশায়ারের বিপক্ষে খেলছেন প্রস্তুতি ম্যাচ। গত বছর করোনা–আশঙ্কায় সিরিজের পঞ্চম ম্যাচটি না খেলেই ফিরে গিয়েছিল ভারত, এবার হবে সে ম্যাচটিই। একসময় অফ স্টাম্পের বাইরে সুইং করা বলে বেশ নড়বড়ে ছিলেন কোহলি ইংলিশ কন্ডিশনে। পরে সেটি সামলে নিয়ে সফলও হন।

অবশ্য ওয়াসিম বলছেন, সুইংয়ে সব সময় কোহলির মতো ‘গ্রেট’ ব্যাটসম্যানকে পরাস্ত না-ই করা যেতে পারে। তখন তিনি নামতেন ভিন্ন পরিকল্পনা নিয়ে, ‘যদি সেটি কাজ না করে, তাহলে “প্ল্যান বি”-তে যেতাম। যেটি হতো বাউন্সার করা। ফিল্ডার বাউন্ডারিতে রাখতাম, তারপর তাকে পিছিয়ে নিয়ে যেতাম। ছোটখাটো পরিবর্তন আসলে গুরুত্বপূর্ণ।’

default-image

টেস্টে সব মিলিয়ে বাঁহাতি বোলারের বলে কোহলি আউট হয়েছেন এখন পর্যন্ত ২৯ বার। ডানহাতি বোলারের বিপক্ষে তাঁর গড় ৪৩.৭৫ হলেও বাঁহাতিদের বিপক্ষে সেটি বেড়ে হয় ৫০.৮৬। অন্যদিকে টেস্ট ক্যারিয়ারে ওয়াসিম ডানহাতি ব্যাটসম্যানকে আউট করেছেন ৩২০ বার, তাঁদের বিপক্ষে গড় ১৬.৬০। বাঁহাতিদের বিপক্ষে সেটি ১৯.৮০।

সব মিলিয়ে ওয়াসিম-কোহলির দ্বৈরথটা যে দেখার মতো হতো, সেটি নিয়ে নিশ্চয়ই সংশয় নেই!

খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন