বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সেসব বিতর্ক ছাপিয়ে জোহানেসবার্গে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টের দ্বিতীয় দিনটা অবশ্য ভারত পেসার শার্দূল ঠাকুরেরই। ৬১ রানে ৭ উইকেট নেওয়ার পর দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ভারতের কোনো বোলারের সেরা বোলিং ফিগার শুধু নয়, দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে এশিয়ার কোনো বোলারেরও সেরা ফিগারের রেকর্ড গড়েছেন ঠাকুর। ঠাকুরের রেকর্ড গড়া বোলিংয়ের তোপে পড়ার পর প্রথম ইনিংসে ২৭ রানের লিড নিয়েছিল স্বাগতিকেরা। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং করতে নেমে ২ উইকেট হারিয়ে ৫৮ রানে এগিয়ে গেছে ভারত।

default-image

রাহুলের পর ফিরেছেন মায়াঙ্ক আগারওয়াল। আরেকবার ভালো শুরু করার পর ডুয়ান অলিভিয়েরের বল ছেড়ে দিয়ে এলবিডব্লু হয়েছেন তিনি। এর আগে ৩৭ বলে করেছেন ২৩ রান, মেরেছেন ৫টি চার। দিন শেষে ৪২ বলে ৩৫ রান করে অপরাজিত আছেন চেতেশ্বর পূজারা, ক্রিজে তাঁর সঙ্গী আরেক অভিজ্ঞ অজিঙ্কা রাহানে।

এর আগে ১ উইকেটে ৩৫ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিন শুরু করা দক্ষিণ আফ্রিকা ছিল ইতিবাচকই। দিনের প্রথম উইকেটের দেখা পেতে ভারতকে অপেক্ষা করতে হয়েছে ২১তম ওভার পর্যন্ত। ঠাকুরের বলে খোঁচা দিয়ে ফেরেন অধিনায়ক ডিন এলগার। তবে কিগান পিটারসেনের যেন তাতে কিছু যায়-আসেনি তখন, মোহাম্মদ শামিকে পরের ওভারে ৪ বলের ব্যবধানে ৩ চার মারার পথে পান ক্যারিয়ারের প্রথম অর্ধশতক। ঠাকুরের বলেই থামতে হয় তাঁকে, স্লিপে ক্যাচ দিয়ে।

ঠিক পরের ওভারে এসে রাসি ফন ডার ডুসেনের উইকেটও নেন ঠাকুর, সে আউট নিয়েই ছিল প্রথম বিতর্কটা। উইকেটকিপার ঋষভ পন্ত সামনে বাড়িয়ে ক্যাচ নিয়েছিলেন। অন ফিল্ডের আউটের সিদ্ধান্ত নিয়ে তখন কিছু না হলেও রিপ্লে দেখানোর পর তৈরি হয় ধোঁয়াশা। মধ্যাহ্নবিরতিতে এরপর ম্যাচ অফিশিয়ালদের সঙ্গে কথাও বলে আসেন প্রোটিয়া অধিনায়ক ও ম্যানেজার। ম্যাচ শেষে অবশ্য এ নিয়ে কথা বলতে রাজি হননি ব্যাটসম্যান পিটারসেন।

default-image

মাঠে কাইল ভেরেইনকে নিয়ে টেম্বা বাভুমা ঠাকুরের তোপ সামলে নেন একটু, দুজনের জুটিতে ওঠে ৬০ রান। ভেরেইন অবশ্য ঠাকুরের কবলেই পড়েন। অর্ধশতকের পরপরই বাভুমা পরিণত হন ঠাকুরের পঞ্চম শিকারে। ৬ ম্যাচের ক্যারিয়ারে প্রথমবার ৫ উইকেট পেলেন এ ডানহাতি পেসার। বাভুমা আউট হওয়ার পরের ওভারেই শামির বলে ফেরেন কাগিসো রাবাদা, দক্ষিণ আফ্রিকা তখন লিড নেওয়ার আগেই থামার শঙ্কায়।

মার্কো ইয়ানসেন ও কেশব মহারাজের ৩৮ রানের জুটি অবশ্য এগিয়ে নেয় প্রোটিয়াদের। মহারাজ থামেন শামির বলে বোল্ড হয়ে। এরপর ইয়ানসেনকে ষষ্ঠ ও লুঙ্গি এনগিডিকে সপ্তম শিকারে পরিণত করেন ঠাকুর।

খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন