বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ডি ব্রুইনার গোল উৎসবে ভালোই লাভ হয়েছে ম্যানচেস্টার সিটির। উলভসের মাঠে ৫-১ গোলের জয় পেয়েছে পেপ গার্দিওলার দল। ৮৪ মিনিটে সিটির হয়ে অন্য গোলটি রাহিম স্টার্লিংয়ের। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের সমীকরণ বলছে, নিজেদের ম্যাচগুলো জিতলেই সিটির শিরোপা জয় আটকাতে পারবে না লিভারপুল। সে পথে ডি ব্রুইনাদের আজকের জয়টা নিঃসন্দেহে প্রেরণার।

৩৬ ম্যাচে ৮৯ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে পেপ গার্দিওলার দল। সমান ম্যাচে ৮৬ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে লিভারপুল। দুই দলের হাতেই আর দুটি করে ম্যাচ। সিটি নিজেদের বাকি দুই ম্যাচ জিতলেই চ্যাম্পিয়ন।

default-image

চ্যাম্পিয়নস লিগ সেমিফাইনালে রিয়াল মাদ্রিদের কাছে হেরে বাদ পড়ার পর যেন জেদ কাজ করেছে ফিল ফোডেন-ডি ব্রুইনাদের মধ্যে। নিউক্যাসল ইউনাইটেডকে ৫-০ গোলে বিধ্বস্ত করে এ ম্যাচ খেলতে নেমেছিল সিটি। চ্যাম্পিয়নস লিগের ব্যর্থতা ভুলতে লিগে বাকি পথটা ঠিকঠাক শেষ করার প্রেরণা এ ম্যাচে জুগিয়েছেন ডি ব্রুইনা।

একাই চার গোল করে লিগ জয়ের ব্যক্তিগত উৎসবটা বেলজিয়ান মিডফিল্ডার আগেই সেরে নিলেন কী না কে জানে! বাকি দুই ম্যাচে সিটির প্রতিপক্ষ সপ্তম ওয়েস্ট হাম ও ১২তম অ্যাস্টন ভিলা। ডি ব্রুইনাদের অসুবিধা হওয়ার কথা নয়।

ডিফেন্ডাররা চোটে থাকায় রক্ষণ নিয়ে আজ চিন্তা ছিল সিটি কোচ গার্দিওলার। আয়েমেরিক লাপোর্ত ও ফার্নান্দিনহোকে রক্ষণে রেখে সামনে বাঁয়ে জিনশেঙ্কো ও ডানে হোয়াও ক্যানসেলোকে খেলান গার্দিওলা।

১১ মিনিটে উলভসের লেন্দার দেনদনকেরের গোল ছাড়া বেশি ভাবতে হয়নি সিটি রক্ষণকে। ডি ব্রুইনা প্রায় একাই মাতিয়ে রাখেন সিটিকে।

প্রথমার্ধে ১৮ মিনিটের ব্যবধানে হ্যাটট্রিক তুলে নেন ডি ব্রুইনা। ৭ মিনিটে প্লেসিং শটে, ১৬ মিনিটে ফিরতি শটে এবং ২৪ মিনিটে বক্সের বাইরে থেকে বাঁকানো শটে করা গোল। সবগুলোই এসেছে বাঁ পায়ে এবং শেষ গোলটি নিঃসন্দেহে চোখ জুড়ানো।

প্রিমিয়ার লিগে তৃতীয় দ্রুততম হ্যাটট্রিক করলেন ডি ব্রুইনা। শুধু কী তাই, ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের ইতিহাসে তৃতীয় মিডফিল্ডার হিসেবে এক ম্যাচে চার গোলও পেয়ে যান নির্ধারিত সময় শেষ হওয়ার আধ ঘন্টা আগে, বাঁ পাশে থেকে আসা ক্রসে ডান পায়ের শটে।

উলভস গোলটি পেয়েছে প্রতি আক্রমণে। পেদ্রো নেতোর পাস থেকে গোল করেন দেনদরকের। তবে গোল আরও পেতে পারত সিটি। বল পোস্টে মেরেছেন সিটি তারকা ফোডেন। স্টার্লিং সহজ সুযোগ নষ্ট করেন।

৮৪ মিনিটে উলভস গোলকিপার ক্যানসেলোর চেষ্টা রুখে দিলে ফিরতি বলে টোকা মেরে গোল পেয়ে যান স্টার্লিং।

খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন