বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

জো রুটের পর দ্বিতীয় ক্রিকেটার হিসেবে একাধিকবার আইসিসির মাসসেরার মনোনয়ন পেলেন সাকিব। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে এ মনোনয়ন পেলেন তিনি। সাকিব এ টুর্নামেন্টে ৬ ম্যাচে ২১.৮৩ গড়ে ১৩১ রান করার সঙ্গে ১১.১৮ গড়ে ১১ উইকেট নিয়েছেন। সাকিব বোলিং করেছেন মাত্র ৫.৫৯ ইকোনমি রেটে। সর্বশেষ হালনাগাদ করা আইসিসি টি-টোয়েন্টি র‍্যাঙ্কিংয়ে অলরাউন্ডারের তালিকায় আফগানিস্তানের মোহাম্মদ নবীর সঙ্গে যৌথভাবে শীর্ষেও আছেন তিনি। চোটের কারণে অবশ্য বিশ্বকাপে বাংলাদেশের শেষ দুই ম্যাচ থেকে ছিটকে গেছেন সাকিব।

এ বছরের শুরুতে মাসসেরা স্বীকৃতি চালু হওয়ার পর বাংলাদেশ থেকে এ নিয়ে চতুর্থবারের মতো মনোনয়ন পেলেন কেউ। প্রথম গত মে মাসে মাসসেরার মনোনয়ন ও পুরস্কার পান মুশফিকুর রহিম। এরপর জুলাইয়ে সাকিবের পর গত সেপ্টেম্বরে মনোনয়ন পেয়েছিলেন বাঁহাতি স্পিনার নাসুম আহমেদ।

default-image

এবার সাকিবের সঙ্গী আসিফ আলী মনোনয়ন পেয়েছেন পাকিস্তানের হয়ে ম্যাচজয়ী দুটি ইনিংসের পর। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ১২ বলে অপরাজিত ২৭ রানের ইনিংসের পর আফগানিস্তানের বিপক্ষে ১৯তম ওভারে চার ছক্কায় পাকিস্তানকে ম্যাচ জিতিয়েছেন আসিফ।

default-image

আর ২০০৩ সালের পর প্রথমবারের মতো আইসিসির বৈশ্বিক কোনো ট্রফি খেলতে এসেই নামিবিয়াকে প্রথম পর্ব পার করানোয় ভূমিকা রেখেছেন অলরাউন্ডার ভিসা। ২৭ গড়ে ১৬২ করেছেন তিনি, ব্যাটিং করেছেন ১৩২.৭৮ স্ট্রাইক রেটে। প্রথম পর্বে অপরাজিত ৬৬ ও ২৮ রানের ইনিংসে নেদারল্যান্ডস ও আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ জেতানোয় ভূমিকা রেখেছেন ভিসা। পাশাপাশি ৭.২৩ ইকোনমি রেটে বোলিং করে নিয়েছেন ৭ উইকেটও।

আগামী সপ্তাহে এ তিনজন থেকে একজনকে অক্টোবর মাসের সেরা ক্রিকেটার হিসেবে ঘোষণা করবে আইসিসি। আইসিসির ভোটিং প্যানেলের সদস্যদের সঙ্গে ভোট দিতে পারবেন সমর্থকেরাও।

খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন