বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বুড়ো আঙুল ও তর্জনি বাঁকিয়ে হরলান্ড যেভাবে গোল করে ধ্যান করার মতো উদযাপন করেন, তেমন। এক দিন আগেই ম্যানচেস্টার সিটিতে যোগ দিয়েছেন বর্তমান বিশ্বের অন্যতম সেরা এ স্ট্রাইকার।

গোল উদযাপনে হরলান্ডের সঙ্গে কোনো সংযোগ ছিল কি না, সে প্রশ্নের উত্তরে নিরাশ হবেন অনেকে। ম্যাচ শেষে ডি ব্রুইনা বলেছেন, 'কয়েকটি সাক্ষাৎকারে জানতে চাওয়া হয়েছে এটা (উদযাপন)) হরলান্ডের জন্য ছিল কি না? তিন গোল করায় এটা করেছি। এটা তো হয়ই না! তবে চার গোল করা সব সময়ই বিশেষ কিছু। সত্যি বলতে, গোল পাঁচটা হওয়া উচিত ছিল।'

চার গোল তো এই প্রথম, এমনকি হ্যাটট্রিকও ডি ব্রুইনার জন্য বিরল। তাঁর সর্বশেষ হ্যাটট্রিক ২০১১ সালে গেঙ্কের হয়ে। ফ্রাঙ্ক ল্যাম্পার্ড ও জর্জিনিও ভাইনালডামের পর প্রিমিয়ার লিগে এক ম্যাচে চার গোল করা তৃতীয় মিডফিল্ডার। চেলসিতে ল্যাম্পার্ড একাই চার গোল করেছেন দুবার।

তবে প্রিমিয়ার লিগে দ্রুততম হ্যাটট্রিকে সাদিও মানে (১৬ মিনিট) ও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সাবেক ফরোয়ার্ড ডুইট ইয়র্কের (২১ মিনিট) পরই ডি ব্রুইনা। কিন্তু একটি জায়গায় বাকি সবার চেয়ে আলাদা।

প্রিমিয়ার লিগে করা ৫৮ গোলের মধ্যে হেডে কোনো গোল নেই ডি ব্রুইনার। সবগুলো গোলই পায়ের, হেড ছাড়া প্রিমিয়ার লিগে এত গোল কারও নেই। উলভারহ্যাম্পটনের মাঠেও চার গোলের সবগুলো করলেন পায়ে, বাঁ পায়ে হ্যাটট্রিক, ডান পায়ে চার নম্বর। বেলজিয়াম মিডফিল্ডার এমনিতে ডান পায়ের খেলোয়াড়। কিন্তু বাঁঁ পায়ে করা তৃতীয় গোলটি ছিল চোখ ধাঁধানো। বক্সের কোনা থেকে জোরালো শটটা দেখে মনে হয়েছে ডি ব্রুইনা বাঁ পায়েও বিলক্ষণ ক্ষুরধার!

৭ ও ১৬ মিনিটের পর ২৪ মিনিটে করা এই গোলটাই ম্যানচেস্টার সিটি তারকার বেশি পছন্দ, 'তৃতীয় গোলটা আমার ফেবারিট। খুব জোরে মেরেছিলাম। এটাই সবচেয়ে নিখাদ শট।'

default-image

ডি ব্রুইনার বাঁ পায়েও জোর পাওয়া নিয়ে তাঁর শৈশবের একটি গল্প চালু আছে। বেলজিয়ান সংবাদকর্মী ক্রিস্তফ তেরেউ জানিয়েছেন, গেঙ্কের বয়সভিত্তিক দলে থাকতে ডি ব্রুইনাকে তাঁর সহজাত ডান পায়ে শট নেওয়ায় আপত্তি জানিয়েছিলেন এক প্রতিবেশী। বলের গতিতে বাগান নষ্ট হলে আপত্তি জানানো অস্বাভাবিক কিছু না! এরপর থেকে নিশ্চয়ই বাঁ পায়ের শটেও কসরত করেছেন ডি ব্রুইনা। আর তা ভাস্বর হয়ে রইল ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ডি ব্রুইনার প্রথম হ্যাটট্রিকে।

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ২৮তম খেলোয়াড় হিসেবে এক ম্যাচে চার গোল পেলেন ডি ব্রুইনা। পাঁচ গোলেরও নজির আছে পাঁচটি। অ্যান্ডি কোল, অ্যালান শিয়েরার, জার্মেইন ডিফো, দিমিতার বারবাতোভ ও সের্হিও আগুয়েরো ম্যাচে পাঁচ গোলও করেছেন।

২০১৮ সাল থেকে হিসেব করলে এ সময় ষষ্ট খেলোয়াড় হিসেবে ম্যাচে চার গোল করলেন ডি ব্রুইনা। তাঁর ক্লাব সতীর্থ গ্যাব্রিয়েল জেসুসই মাসখানেক আগে চার গোল করেন ওয়াটফোর্ডের বিপক্ষে।

খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন