বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী প্রথম আলোকে বলেছেন, কিছু শর্ত পূরণ না করার কারণেই ঢাকার দলের মালিকানা পাচ্ছে না ওই দুই কোম্পানি, ‘আমাদের কিছু শর্ত ছিল। সেসব পূরণ না হওয়ার করার কারণে আমরা তাদের সঙ্গে না এগোনোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

default-image

জানা গেছে, বিসিবি নিজেরাই এখন ঢাকার দলটি সামলাতে পারে। সেখানে খেলতে পারেন ড্রাফটে এ ক্যাটাগরিতে থাকা তামিম ইকবালও। এবারের টুর্নামেন্টে অংশ নেওয়ার কথা ঢাকার সঙ্গে আরও পাঁচটি দলের—বরিশাল (ফরচুন শুজ), চট্টগ্রাম (ডেল্টা স্পোর্টস), কুমিল্লা (কুমিল্লা লেজেন্ডস), খুলনা (মাইন্ড ট্রি) ও সিলেট (প্রগতি গ্রিন অটো রাইস মিলস)।

আগামী ২১ জানুয়ারি থেকে শুরু হবে এই টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট। করোনাভাইরাসের কারণে প্রায় দুই বছর পর হচ্ছে বিপিএল। এ টুর্নামেন্টের ড্রাফট অনুষ্ঠিত হবে আগামীকাল। ঢাকার একটি হোটেলে দুপুর ১২টায় শুরু হওয়া এ ড্রাফট সরাসরি সম্প্রচার করবে গাজী টিভি ও টি স্পোর্টস। দেখা যাবে বিসিবির ফেসবুক পেজেও।

default-image

ড্রাফটে স্থানীয় ক্রিকেটারদের রাখা হয়েছে ছয়টি শ্রেণিতে। ‘এ’ শ্রেণির খেলোয়াড়দের মূল্য রাখা হয়েছে ৭০ লাখ টাকা। সর্বনিম্ন ‘এফ’ ক্যাটাগরির মূল্য পাঁচ লাখ টাকা। প্রতিটি দল সর্বনিম্ন ১০ থেকে সর্বোচ্চ ১৪ জন স্থানীয় ক্রিকেটার নিতে পারবে। ড্রাফটের আগে একজন স্থানীয় ক্রিকেটারকে সরাসরি নিতে পারবে প্রতিটি দল।

বিদেশি ক্রিকেটারদের ক্ষেত্রে প্রতিটি দলের জন্য সংখ্যাটা সর্বনিম্ন ৩ থেকে সর্বোচ্চ ৮। তবে ড্রাফটের বাইরে সরাসরি তিনজন পর্যন্ত খেলোয়াড় নিতে পারবে দলগুলো। এবার প্রতিটি দলকে একাদশে তিনজন বিদেশি ক্রিকেটার খেলাতেই হবে—সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এমন জানিয়েছিল বিসিবি।

খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন