শ্রীলঙ্কা সফর

বাংলাদেশকে অপেক্ষায় রাখছে শ্রীলঙ্কা

কোয়ারেন্টিন জটিলতায় বাংলাদেশ দলের শ্রীলঙ্কা সফরটা নিয়ে তৈরি হয়েছে সংশয়।
কোয়ারেন্টিন জটিলতায় বাংলাদেশ দলের শ্রীলঙ্কা সফরটা নিয়ে তৈরি হয়েছে সংশয়। ফাইল ছবি
বিজ্ঞাপন

তিন টেস্টের সিরিজ খেলতে বাংলাদেশ দলের শ্রীলঙ্কায় রওনা দেওয়ার কথা ২৭ সেপ্টেম্বর। হাতে সপ্তাহ দুয়েক সময় আছে, অথচ এখনো পর্যন্ত আয়োজক শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড (এসএলসি) বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডকে (বিসিবি) স্বাস্থ্যসংক্রান্ত কোনো পরিকল্পনা নিশ্চিত করতে পারেনি, যেটি ছাড়া এই করোনা পরিস্থিতিতে সফর প্রায় অসম্ভব। বিসিবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নিজাম উদ্দিন চৌধুরী আজ সাংবাদিকদের বলেছেন, তাঁরা আছেন শ্রীলঙ্কার সিদ্ধান্তের অপেক্ষায়।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জুলাইয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ স্থগিত হওয়ার পর বিসিবি ও এসএলসি ফের আলোচনা শুরু করে জুনে স্থগিত হয়ে যাওয়া সিরিজটি নিয়ে। এই আলোচনার শুরু থেকেই বিসিবি বারবার জোর দিয়েছে স্বাস্থ্যসংক্রান্ত বিষয়, বিশেষ করে কোয়ারেন্টিন নিয়ে। করোনা মহামারির কারণে এখন বিশ্বের বেশির ভাগ দেশে সফর করতে হলে দুই সপ্তাহের কোয়ারেন্টিন বাধ্যতামূলক। শ্রীলঙ্কাতেও ব্যতিক্রম নয়। বিসিবি তাই শুরু থেকেই এসএলসিকে জানিয়েছে, দুই সপ্তাহের কোয়ারেন্টিন শিথিল করতে হবে। বিসিবি চেয়েছে খেলোয়াড়, কোচ, কর্মকর্তারা করোনা নেগেটিভ হলে যেন তৃতীয় দিন থেকেই তাদের জাতীয় ও হাইপারফরম্যান্স (এইচপি) দল কাজ শুরু করতে পারে। বিসিবি কিছুতেই সাত দিনের বেশি কোয়ারেন্টিনে থাকতে রাজি নয়। কিন্তু এসএলসি এখনো কোয়ারেন্টিনের বিষয়ে চূড়ান্ত কিছু জানাতে পারেনি বিসিবিকে। এখনো তাদের বেশির ভাগ ই-মেইলে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে ‘যদি’, ‘হতে পারে’র মতো অনিশ্চয়তাসূচক শব্দগুলো ব্যবহার করছে। এসএলসি অবশ্য আবাসন ব্যবস্থা, যাতায়াত ও নিরাপত্তাবিষয়ক পরিকল্পনা পাঠিয়েছে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী শ্রীলঙ্কা সফরের অগ্রগতি নিয়ে আজ সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড আমাদের জানিয়েছে যে, তারা তাদের স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সঙ্গে যোগাযোগ করছে। কোয়ারেন্টিনের বিষয়ে তারা চেষ্টা করছে সময়টা যতটা কমিয়ে নিয়ে আসা যায়। প্রত্যেক দেশেই বৈশ্বিক মহামারির কারণে পরিস্থিতি বদলাচ্ছে। শ্রীলঙ্কাতেও বিভিন্ন নিয়মকানুন জারি হয়েছে। আমাদের দল যখন সফর করবে, সেই কথা চিন্তা করে বিষয়টি (কোয়ারেন্টিন) কতটা সহনীয় পর্যায়ে নিয়ে আসা যায়, নিজেদের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করছে।’ তবে বিসিবিকে এখনো এসএলসি আশ্বস্ত করছে, কোয়ারেন্টিন সাত দিনের বেশি হবে না। নিজাম উদ্দিন বললেন, ‘সর্বশেষ যখন আমাদের যোগাযোগ হয়েছে, তারা বলেছে সাত দিন আমাদের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। তারপর আমাদের নির্ধারিত কার্যক্রম শুরু করতে পারব।’

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

যদি এসএলসি শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশের চাওয়া মেনে সাত দিনের কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত না করতে পারে, বিসিবি কি সফরটা বাতিল করবে? নিজাম উদ্দিন চৌধুরী আশাবাদী, এমন পরিস্থিতি তৈরি হবে না, ‘এখনো আমরা এই বিষয়ে চিন্তা করিনি। শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড যেটা জানিয়েছে, সাত দিন হয়তো সর্বোচ্চ থাকতে হবে। সেভাবেই আলোচনা হচ্ছে। আশা করছি সাত দিনের (কোয়ারেন্টিন) মধ্যেই যদি সীমাবদ্ধ রাখা যায়, আমাদের যে পরিকল্পনা রয়েছে সেভাবেই এগোতে পারব।’

default-image

শ্রীলঙ্কা সফরে কোয়ারেন্টিন ইস্যুটি অমীমাংসিত থাকলেও বাংলাদেশ দলের কার্যক্রম থেমে নেই। নিজেদের পরিকল্পনা অনুযায়ী এগিয়ে যাচ্ছে বিসিবি। এরই মধ্যে নির্বাচকেরা দল করে ফেলেছেন। ক্রিকেটার, কোচদের করোনা পরীক্ষা হচ্ছে। কোচিং স্টাফের বেশির ভাগ সদস্য ঢাকায় এসে পৌঁছেছেন। ঢাকায় আবাসিক ক্যাম্প, ভ্রমণ পরিকল্পনা, কন্ডিশনিং ক্যাম্প করতে শ্রীলঙ্কায় কোন হোটেলে কীভাবে থাকতে হবে—সবই প্রায় চূড়ান্ত করে ফেলেছে বিসিবি।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সফরের বেশি দিন বাকি নেই। নিজাম উদ্দিন চৌধুরী আশাবাদী এই সপ্তাহে এসএলসি কোয়ারেন্টিন-জটিলতা দূর করতে পারবে, ‘আমার মনে হয় না তারা ইচ্ছে করে দেরি করছে। তাদের যে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় আছে, তাদের সঙ্গে কথা বলে সরকারি আদেশ পেতে কাজ করছে। কালও আমাদের সঙ্গে ওদের কথা হয়েছে। আশা করছি আগামী দুই তিন দিনের মধ্যে তাদের কাছ থেকে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানতে পারব।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন