অধিনায়ক নিকোলাস পুরান ম্যাচ পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে সে প্রসঙ্গ টেনে বলছিলেন, ‘পাকিস্তান সিরিজে যে অভিজ্ঞতা হয়েছে, সেটা নিয়ে আমরা অনেক ভেবেছি। আমরা ওয়ানডে ক্রিকেটে জুটির গুরুত্ব কতটা সেটা নিয়ে কথা বলেছি। কীভাবে ৫০ ওভার ব্যাটিং করা যায় সেই আলোচনা হয়েছে। ব্যাটিং গ্রুপ হিসেবে দেখেছি, যখন বল সুইং কিংবা স্পিন করে, আমরা একটু বেশি সময় নিয়ে ফেলি। আশা করি এসব ব্যাপারে আমরা এই সিরিজে একটু সতর্ক থাকব।’

default-image

ওয়ানডে ক্রিকেট খেলার মানসিকতা নিয়েও পুরানকে প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়। তারুণ্যনির্ভর ক্যারিবীয় দলটা ৫০ ওভারের খেলার সঠিক মানসিকতাটা ধরতে সময় নিচ্ছে। বাংলাদেশ সিরিজ থেকে এ ক্ষেত্রে উন্নতি দেখতে চান পুরান, ‘এই দলে অনেক নতুন ক্রিকেটার আছেন যাদের দল হিসেবে খেলতে হবে। ধৈর্য ধরতে হবে। ওয়ানডে ক্রিকেটটা টেস্ট ও টি-টোয়েন্টির মাঝামাঝি একটা সংস্করণ, যেখানে মানসিকতাটা বারবার বদলাতে হয়। এই সংস্করণের জন্য সঠিক মানসিকতাটা ধরতে হবে এবং সেটায় ধারাবাহিক হতে হবে। আশা করি এই সিরিজেই সেটা ধরতে পারব। যেন সামনে আমাদের তেমন কোনো সমস্যা না হয়।’

ওয়ানডে ক্রিকেটের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে অধিনায়ককেই পারফরম্যান্স দিয়ে নেতৃত্ব দিতে হবে। পুরান সেটি কয়েকটি সিরিজ ধরেই পারছেন না। পুরানের সর্বশেষ ওয়ানডে ফিফটি এসেছে ১৩ ইনিংস আগে, ২০২১ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে। নিজের গড়পড়তা ফর্ম নিয়ে প্রশ্নে পুরান বলছিলেন, ‘আমি ওয়ানডে ক্রিকেট এলেই নিজের ফর্মের ব্যাপারে প্রশ্নের মুখে পড়ি। আমি হয়তো সম্প্রতি এই সংস্করণে রান করিনি। আমারও ৫০ ওভারে খেলার মানসিকতায় ঢুকতে হবে। আশা করি সেটা করতে পারলেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ওয়ানডেতে ভালো করা শুরু করব।’

পুরানকে প্রশ্ন করা হয়েছে প্রতিপক্ষ দল বাংলাদেশ নিয়েও। বাংলাদেশ আবার ওয়ানডে ক্রিকেটটাই ভালো খেলে। সাম্প্রতিক রেকর্ডও দারুণ। ওয়ানডে সুপার লিগে দুই নম্বর দল বাংলাদেশ, আইসিসি র‍্যাঙ্কিংয়ে সাত নম্বর - ৫০ ওভারের খেলাটায় শুধু দেশে নয়, বাংলাদেশ এখন দেশের বাইরেও প্রতিযোগিতাপূর্ণ দল। সম্প্রতি দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতেও ওয়ানডে সিরিজ জিতেছে তামিম ইকবালের দল। ২০১৮ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতেও ওয়ানডে সিরিজ জিতেছিল বাংলাদেশ।

default-image

দলের অধিনায়ক তামিম ইকবালও ছন্দে আছেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে বড় ইনিংস না খেললেও রানের মধ্যে থাকার আভাসটা প্রতি ম্যাচেই দিয়েছেন এই বাঁহাতি ওপেনার। অভিজ্ঞতা ও ফর্ম – এসব পক্ষে থাকায় তামিমকে নিয়ে হয়তো আলাদা করেই ভাবতে হচ্ছে পুরানকে।

এ ব্যাপারে উইন্ডিজ অধিনায়ককে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেছেন, ‘তামিমের জন্য বিশেষ কোনো পরিকল্পনা নেই। সে হয়তো আমাদের বোকা বানাতে পারে। আমরা তাঁর সামর্থ্যকে সম্মান জানাই। তবে সবারই ভালো দিন আসে, খারাপ দিনও আসে। আমাদের ভালো কাজটা লম্বা সময় ধরে করে যেতে হবে। আশা করি তাতেই সমস্যার সমাধান হবে।’

খেলাটা যেহেতু গায়ানায়, বাংলাদেশ দলের স্পিন শক্তি নিয়েই ভাবতে হচ্ছে ক্যারিবীয়দের। প্রভিডেন্স স্টেডিয়ামের উইকেট বরাবরই স্পিনারদের সাহায্যে হাত বাড়িয়ে দেয়। পুরানকে সেটিও মাথায় রাখতে হচ্ছে, ‘বাংলাদেশ ওয়ানডে ক্রিকেটটা ভালো খেলছে। আমরা তাদের স্পিন বোলিংটা নিয়ে কথা বলেছি। আশা করি সব পরিকল্পনা মতোই এগোবে।’

খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন