স্বাভাবিকভাবেই মাহমুদউল্লাহর ফর্মের প্রসঙ্গটি আসে আলোচনায়। তবে এ সময়ে, বিশেষ করে সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, ইয়াসির আলীর অনুপস্থিতিতে মাহমুদউল্লাহর এমন ইনিংসের গুরুত্ব অনেক বলে মনে করেন তামিম।

default-image

প্রথম ওয়ানডে শেষে সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ দলের ওয়ানডে অধিনায়ক বলেছেন, ‘৩, ৪, ৫ নম্বর ব্যাটসম্যান ছিল না... (ইয়াসির) রাব্বী সহ। (তারা) ছিল না দলে। এই তিন জন খেলোয়াড় খুবই গুরুত্বপূর্ণ। (মাহমুদউল্লাহ) রিয়াদ ভাইয়ের জন্য ২৫–৩০ রানও অনেক সময় অনেক গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়ায়। এক–দুটি ব্যর্থতার পর আমরা যখন পেছন ফিরে তাকাই তখন শুধু ২৫ রান, ২৮ রান দেখি। কিন্তু ওই ২৫, ২৮ রানের গুরুত্ব অনেক বেশি থাকে।’

এ সফরের আগে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের প্রসঙ্গ টেনে তামিম বলেছেন, ‘দক্ষিণ আফ্রিকার তিনটি ওয়ানডের কথা যদি মনে করেন ওখানে ওনার সুযোগই ছিল না বড় ইনিংস খেলার। এ জন্য আমি মনে করি ওনার বিষয়টা একটু অন্যভাবে দেখা উচিত। কারণ ওনার কাজটা কখনোই প্রশংসা পায় না।’

মাহমুদউল্লাহর ব্যাটিংয়ের ‘খারাপ দিক’ই তুলে ধরা হয়, এমন মনে করেন তামিম, ‘এক-দুই ম্যাচে খারাপ করলে ওই জিনিসগুলোই আমরা তুলে ধরি। এই দিক থেকে যদি আমরা সবাই একটু শিখি তাহলে ওনার ওপর চাপটা কমে যাবে। আমি খুশি যে তিনি খেলা শেষ করে এসেছেন।’

খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন