চট্টগ্রাম টেস্টে দুই ইনিংসে সাইফ করেছেন ১৪ ও ১৮ রান। দুবারই শাহিন শাহ আফ্রিদির শর্ট বলে ক্যাচ দিয়েছেন তিনি। এ ধরনের বলে সাইফের টেকনিকও প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। তবে নিজেকে আরেকবার প্রমাণ করার সুযোগটা আপাতত পাচ্ছেন না তিনি। ২০২০ সালে টেস্ট অভিষেক হওয়া সাইফ এখন পর্যন্ত এ সংস্করণে খেলেছেন ৬টি ম্যাচ।

default-image

পাকিস্তানের বিপক্ষেই সীমিত ওভারের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেও অভিষেক হয়েছে সাইফের। তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের আগে কিছুটা আচমকাই দলে ডাক পান তিনি। প্রথম দুই ম্যাচে খেলেছেনও। যদিও দুই ম্যাচ মিলিয়ে করতে পেরেছেন ১ রান। এ সংস্করণ তাঁর জন্য এখনোই উপযুক্ত কি না, সে প্রশ্নও উঠেছে।

default-image

মিরপুর টেস্টে সাইফের জায়গায় নতুন কাউকে নেওয়া হবে কি না, সেটি এখনো নিশ্চিত করেনি বিসিবি। এমনিতেও এ টেস্টের জন্য ২০ সদস্যের স্কোয়াড ঘোষণা করা হয়েছিল। প্রথমবারের মতো টেস্ট দলে ডাক পেয়েছেন গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে সর্বশেষ প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলা মোহাম্মদ নাঈম। ফিরেছেন চোটের কারণে প্রথম টেস্টের দলে না থাকা তাসকিন আহমেদ, ফিট হয়ে উঠেছেন সাকিব আল হাসানও।

সাইফ ছিটকে যাওয়ায় আপাতত বাংলাদেশ দল দাঁড়াল ১৯ জনের। চট্টগ্রামে সাইফের সঙ্গে ইনিংস উদ্বোধন করেছিলেন সাদমান ইসলাম, তিনে খেলেছিলেন নাজমুল হোসেন।

খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন