বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গত সোমবার শারজায় শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচে বোলিংয়ের সময়ে চোট পান মিলস। ১.৩ ওভার বোলিং করেই উঠে যেতে হয়েছিল তাঁকে। এক বিজ্ঞপ্তিতে ইসিবি জানিয়েছে, মঙ্গলবার করা স্ক্যানে চোটের গভীরতা বোঝা গেছে মিলসের। ২০১৮ সালে এমন এক চোটে পড়েই মৌসুম শেষ হয়ে গিয়েছিল ২৯ বছর বয়সী এ ফাস্ট বোলারের।

default-image

মিলসের ছিটকে যাওয়া ইংল্যান্ডের জন্য এল বড় একটা ধাক্কা হয়েই। বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের প্রথম চার ম্যাচেই খেলেছেন মিলস। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচের আগে ৩ ম্যাচে ৭ উইকেট নিয়েছেন এ বাঁহাতি ফাস্ট বোলার, এখন পর্যন্ত টুর্নামেন্টে যা ইংল্যান্ডের হয়ে সর্বোচ্চ। ডেথ ওভারের বোলিংয়ে অধিনায়ক এউইন মরগানের অন্যতম ভরসা ছিলেন তিনি। ক্রিস জর্ডানের সঙ্গে মরগানের হাতে অপশন হিসেবে এখন থাকলেন মার্ক উড, টম কারেন ও ডেভিড উইলি।

বিশ্বকাপ দিয়েই চার বছরের বেশি সময় পর ইংল্যান্ড দলে ফিরেছিলেন মিলস। টি-টোয়েন্টি ব্লাস্টের পর দ্য হানড্রেডে দারুণ পারফরম্যান্সের পুরস্কার পেয়েছিলেন তিনি। তবে আগেভাগেই বিশ্বকাপ শেষ হয়ে গেল তাঁর।

default-image

চোটের কারণে ইংল্যান্ডের এবারের বিশ্বকাপ স্কোয়াড থেকে ছিটকে যাওয়া দ্বিতীয় খেলোয়াড় হলেন মিলস। টুর্নামেন্ট শুরুর আগেই তারা হারিয়ে ফেলেছে অলরাউন্ডার স্যাম কারেনকে। তাঁর জায়গায় নেওয়া হয়েছে তাঁরই ভাই টম কারেনকে। চোটের কারণে এ বিশ্বকাপে আগে থেকেই নেই জফরা আর্চার। চোট ও মানসিক স্বাস্থ্যের কারণে খেলছেন না বেন স্টোকসও।

ইংল্যান্ড অবশ্য আছে দুর্দান্ত ফর্মেই। ওয়েস্ট ইন্ডিজ, বাংলাদেশ, অস্ট্রেলিয়ার পর শ্রীলঙ্কাকেও হারিয়ে টানা চার ম্যাচ জিতে সেমিফাইনাল প্রায় নিশ্চিত করে ফেলেছে তারা। গ্রুপ পর্বে তাদের শেষ ম্যাচ দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে, আগামী শনিবার শারজায়।

খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন