গতকাল সংবাদ সম্মেলনে এসে মুশফিকের ওই শট নিয়ে নিজের হতাশা প্রকাশ্যেই জানিয়েছিলেন টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ। তবে দ্বিতীয় ইনিংসে ৮০ রানে অলআউট হয়ে ৩৩২ রানের বড় ব্যবধানে দ্বিতীয় টেস্ট হারার পর মুশফিকের পক্ষেই কথা বললেন মুমিনুল, ‘মুশফিক ভাইয়ের আউট নিয়ে…আমি জানি না আপনারা হয়তো এটা নিয়ে খুব বেশি কথা বলছেন। আপনারা (অবশ্য) বলতেই পারেন। টেস্ট, ওয়ানডে, টি-টোয়েন্টি—যেখানেই হোক, রিভার্স সুইপ তো ক্রিকেটের একটা শট, তা–ই না? বাইরের কিছু না। এই শট খেলতেই পারেন, ওনার পরিকল্পনায় থাকলে তো খেলবেনই। এমন না যে এটা খেলে এর আগে রান করেনি। বা সফল হননি। আমি ওনাকে সমর্থন করি এটা নিয়ে।’

স্পিনের বিপক্ষে এ শট কার্যকর, দক্ষিণ আফ্রিকায় সিরিজ কাভার করতে যাওয়া সাংবাদিকদের মুমিনুল মনে করিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছেন সেটি, ‘আপনারা আমার আগে থেকে খেলা দেখেছেন অনেক। শ্রীলঙ্কা থেকে শুরু করে, এসব উইকেটে কিন্তু বল ঘুরলে সুইপ রিভার্স সুইপ ছাড়া অপশনটা কম থাকে। উনি রিভার্স সুইপে অনেক সফল। ওইটা খেলে বোলারের হয়তো (পরিকল্পনা) বদলাতে পারবে (মনে করেছিলেন)।’

default-image

ড্রেসিংরুমে ফিরে মুশফিকের মনোভাবও ব্যাখ্যা করেছেন মুমিনুল, ‘ফিফটি করার পর আউট হওয়ার পর, প্লেয়ার হিসেবেই হতাশ লাগছিল তার। “গিলটি ফিল” করছিল। কারণ অনেক দিন পর রান করেছেন, বড় খেলোয়াড়েরা ইনিংস বড় করে। এ কারণেই “গিলটি ফিল” করেছে। ইনিংস বড় করতে পারলে তো পরিস্থিতি ভিন্ন হতো।’

মুশফিকের এমন শট খেলার পর তাঁর জবাবদিহির জায়গা নিয়েও আছে প্রশ্ন। ড্রেসিংরুমে মুশফিককে এ ব্যাপারে প্রশ্ন করার মতো পরিস্থিতি আছে কি না, এমন প্রশ্নের সরাসরি জবাবে দেননি মুমিনুল, ‘এটা কিন্তু ইয়া না, এটাতে সফল হয়েছেন উনি…আপনিও দেখেছেন, আমিও দেখেছি…’

default-image

এরপর মুশফিকের এ শট নিয়ে এভাবে কথা বলতেই অনুরোধ করেছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক, ‘একসময় আমার সঙ্গেও ছিলেন, আপনাদের অনুরোধ করব—জিনিসটা যদি এভাবে (না দেখেন), বাংলাদেশ দলের জন্যই ভালো। জিনিসটা নিয়ে যদি অনেক বেশি জোর দেন আপনারা, বাংলাদেশ দলের জন্য খারাপ, দেশের জন্য খারাপ। উনি তো এই শটটা খেলে সফলও হন।’

মুশফিক ওই রিভার্স সুইপ খেলার আগে অবশ্য একটা খরা কাটিয়েছেন। এর আগে সর্বশেষ ১০টি টেস্ট ইনিংসে একটি অর্ধশতক ছিল তাঁর, প্রথম ইনিংসে পেয়েছেন আরেকটি। তবে মুমিনুল প্রথম ইনিংসে ৬ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে ফিরেছেন ৫ রান করেই। এ নিয়ে টানা ৫ ইনিংস দুই অঙ্কই ছুঁতে পারলেন না এ বাঁহাতি।

মুমিনুল অবশ্য নিজের ফর্ম নিয়ে চিন্তা করছেন না এরপরও, ‘আপনি যদি জিনিসটা মনে করেন…দুই-এক ম্যাচ খারাপ খেলতেই পারেন, তার মানে এই না যে আমি আমার জায়গায় নাই। একটা ইনিংসে শুধু রান হয় নাই। খুব একটা উদ্বিগ্ন না। আমি জানি কীভাবে রান করতে হয়। আমি এর আগেও এমন ছিলাম, বড় রান করেছি এরপরও।’

খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন