সাকিবের রূপগঞ্জে খেলার ব্যাপারটি নিশ্চিত করেছেন ক্লাবটির কর্ণধার বর্তমানে দেশের বাইরে থাকা লুৎফর রহমানও। আর রূপগঞ্জের দলীয় একটি সূত্র প্রথম আলোকে জানিয়েছে, আগামীকাল রাতে দেশে পৌঁছে পরশু দিনই প্রাইম ব্যাংকের সঙ্গে বিকেএসপিতে হতে যাওয়া ম্যাচটি খেলবেন সাকিব। এর আগে পারিবারিক কারণে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ না খেলেই চলে এসেছিলেন সাকিব, এখন পরিবারের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রে আছেন। অবশ্য সাকিবের খেলার বিষয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) ও ক্রিকেট কমিটি ফর ঢাকা মেট্রোপলিসের (সিসিডিএম) অনুমোদন প্রয়োজন হবে। তবে প্রিমিয়ার লিগের বাইলজ অনুযায়ী, মোহামেডান সুপার উঠতে ব্যর্থ হওয়ায় লিগে এখন পর্যন্ত কোনো ম্যাচ না খেলা সাকিবের সুপার লিগে অন্য ক্লাবের হয়ে খেলতে বাধা নেই।

রূপগঞ্জ টাইগার্স ক্রিকেট ক্লাবকে হারিয়ে সুপার লিগ শুরু করেছে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ। এখন পর্যন্ত ১১ ম্যাচে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দুইয়ে আছে মাশরাফি বিন মুর্তজা-নাঈম ইসলামদের দল। ১১ ম্যাচে ২০ পয়েন্ট নিয়ে লিগের শীর্ষে শেখ জামাল। অন্যদিকে টেবিলে সাতে থেকে লিগ শেষ করেছে মোহামেডান। তারকাঠাসা দল গড়লেও জাতীয় দলের দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের কারণে বেশির ভাগ খেলোয়াড়কেই প্রথম পর্বে পায়নি তারা। সুপার লিগেও উঠতে ব্যর্থ হয়েছে ক্লাবটি।

default-image

তবে মোহামেডান সাকিবকে ধরে রাখবে না, জানিয়েছেন সাব্বির, ‘কোন ক্লাবে খেলবে সেটা তাৎপর্যপূর্ণ নয়। খেলার জন্য আমাদের কাছে যে অনাপত্তিপত্র চেয়েছে, আমরা দিয়েছি। আমরা তাঁকে শুভকামনা জানাই। ক্লাবের সিদ্ধান্ত, আমরা সাকিব আল হাসানকে ছেড়ে দেব। যদি সিসিডিএম এবং বিসিবি অনুমোদন দেয়, তাহলে খেলবে।’

সাকিব গত মৌসুমেও মোহামেডানেই ছিলেন। পরের মৌসুমেও তাঁকে ধরে রাখবে ক্লাবটি, এমন জানিয়েছেন সাব্বির, ‘আমরা তাকে পরের বছরের জন্য ধরে রাখছি। শ্রীলঙ্কা সিরিজের আগে চারটা ম্যাচ আছে, খেলতে চাই। ক্রিকেট, সাকিব ও ইতিবাচকতার স্বার্থে এটা ভালো একটা দিক। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের “গ্ল্যামার” বাড়বে এতে আরও।’

লিগ শুরুর আগে বেশ ঢাকঢোল পিটিয়েই জাতীয় দলের বেশ কয়েকজন তারকাকে দলে ভিড়িয়েছিল মোহামেডান। সাকিব, মুশফিক, মিরাজ ছাড়াও ছিলেন তাসকিন আহমেদ, মাহমুদউল্লাহ। একমাত্র মাহমুদউল্লাহই দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের পর ৭টি ম্যাচ খেলেছেন। আগেভাগে চোট নিয়ে ফেরা তাসকিনকে পায়নি ক্লাবটি। ২০১৭-১৮ মৌসুমের পর এই প্রথমবার ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের পরের রাউন্ডে যেতে পারল না মোহামেডান।

জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের না পাওয়াটা তাদের জন্য কিছুটা হলেও ক্ষতি করেছে, স্বীকার করেছেন সাব্বির। তবে বলেছেন, ‘বড় বড় খেলোয়াড়দের সুপার লিগে খেলতে ছেড়ে দেওয়াতেই প্রমাণ করে, এ ক্লাব কত বড়। আমরা আইনি দিক দিয়ে চাইলে তাদের আটকাতে পারতাম। সেটি করিনি আমরা।’

খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন