১৪ বলে ফিফটি করেছেন রাসেল।
১৪ বলে ফিফটি করেছেন রাসেল। ছবি: এলপিএল

ম্যাচটা শাহরুখ খান দেখেছেন কি না কে জানে। দেখলে ম্যাচটা কেন দেখেছেন, সেটা ভেবে আফসোস করবেন নিশ্চিত। তাঁর ফ্র্যাঞ্চাইজি কলকাতা নাইট রাইডার্স যে এবার কোয়ালিফায়ারেও উঠতে পারল না, এর পেছনে ব্যাট হাতে দলের সবচেয়ে বড় তারকা আন্দ্রে রাসেলের ব্যর্থতাই দায়ী। কিন্তু আইপিএল শেষ করে শ্রীলঙ্কায় গিয়ে রাসেল আবার সেই চিরপরিচিত বিধ্বংসীরূপে। এলপিএলের ম্যাচে ঝোড়ো ব্যাটিংয়ে ফিফটি করেছেন মাত্র ১৪ বলে। ১৯ বলে করেছেন ৬৫ রান। তাঁর ব্যাটে ভর করেই বৃষ্টির কারণে ছোট হয়ে আসা ম্যাচটা ৩৪ রানে জিতেছে কলম্বো কিংস। রাসেলের কাছে হার মেনেছে শহীদ আফ্রিদির গল গ্ল্যাডিয়েটরস।

default-image

নিজেকে কপালপোড়া ভাবতেই পারেন আফ্রিদি। প্রথম ম্যাচে তিনিই ছিলেন বিধ্বংসীরূপে। তাতে লাভ হয়নি। জফনা স্ট্যালিয়নসের আভিষ্কা ফার্নান্দোর ঝড়ে হেরে তাঁর ইনিংসটা অর্থহীন হয়ে গিয়েছিল। এ ম্যাচে তেমন কিছু করতে পারেননি। মাঠে থেকে রাসেলের ঝড় দেখেছেন, হেরেছেন এ ম্যাচেও।

বিজ্ঞাপন

বৃষ্টিতে ২০ ওভারের ম্যাচ কমে পাঁচ ওভারের হয়ে যায়। প্রথমে ব্যাট করতে নামে কলম্বো। ওপেনিং সঙ্গী থিকশিলা ডি সিলভা প্রথম বলে আউট হয়ে গেলেও রাসেল শুরু থেকেই ছিলেন মারকুটে মেজাজে। ১০ বলে ২১ রান করা লরি এভান্সও যোগ্য সঙ্গ দিয়ে গেছেন। ওদিকে ১৯ বলের মধ্যে মাত্র দুটি বলে কোনো রান নিতে পারেননি রাসেল। চার মেরেছেন নয়টা, ছয় চারটা। ১৪ বলে ফিফটি করে টি-টোয়েন্টিতে উইন্ডিজ তারকাদের মধ্যে দ্বিতীয় দ্রুততম ফিফটির রেকর্ড গড়েছেন। বিগ ব্যাশ লিগে ক্রিস গেইলের করা ১২ বলে ফিফটিটা এখনো শীর্ষে আছে।

রাসেলের ঝড় সবচেয়ে বেশি গেছে মোহাম্মদ আমিরের ওপর দিয়ে। মাত্র দুই ওভার বল করে ৪৬ রান দিয়েছেন এই পাকিস্তানি পেসার। প্রথম ওভারেই আমিরকে পিটিয়ে ছাতু বানিয়েছেন রাসেল, মেরেছেন দুই ছয় আর তিনটি চার। পরে লরি ইভান্সও এই বাঁহাতি পেসারের বলে ছক্কা মেরেছেন দুটি। পরে ব্যাট করতে নেমে দুই উইকেট হারিয়ে ৬২ রান তুলতে না তুলতেই শেষ হয়ে যায় গল গ্ল্যাডিয়েটরসের ইনিংস। হিসাব করলে রাসেলের রানই পুরোপুরি তুলতে পারেনি গল!

মন্তব্য করুন