default-image

কে জানতো আজ এমন স্বপ্নের মতো শুরু হবে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু পেসার মোহাম্মদ সিরাজের! প্রথম স্পেলেই করলেন অসাধারণ বোলিং। ২ ওভারে ২ মেডেন, শূন্য রানে ৩ উইকেট। টেস্ট বা ওয়ানডে নয়, টি টোয়েন্টির প্রথম ওভারে সিরাজ এমন অবিশ্বাস্য বোলিংই করলেন আজ আইপিএলে। ম্যাচের শুরুতে যে হাসিটা লেগে ছিল সিরাজের, শেষেও হাসতে হাসতেই ড্রেসিংরুমে ফিরেছে তার দল বেঙ্গালুরু। আজ কলকাতা নাইট রাইডার্সকে বেঙ্গালুরু হারিয়েছে ৮ উইকেটের ব্যবধানে।

বিজ্ঞাপন

কলকাতার দুজন ডানহাতি ওপেনার দেখে দ্বিতীয় ওভারে স্পিনার ওয়াশিংটন সুন্দরকে বোলিংয়ে আনেননি অধিনায়ক বিরাট কোহলি। নতুন বলে আস্থা রাখেন সিরাজের ওপর। সিরাজ অধিনায়কের আস্থার কি দারুণ প্রতিদানই না দিলেন! কলকাতার ওপেনার রাহুল ত্রিপাঠি, নীতিশ রানা ও টম বেন্টনকে ফেরালেন সাজঘরে। হ্যাটট্রিক না হলেও ওভারটা মেডেন ছিল সিরাজের। সিরাজের পরের ওভারেও রান নিতে পারেনি কলকাতা। সুইংয়ে ঘায়েল হয়ে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিলেন ব্যান্টন। ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে মাত্র ২ রান দিয়েছেন। অবশ্য ১৯তম ওভারে ৬ রান এসেছে। কিন্তু সব মিলিয়ে তার বোলিং বিশ্লেষণ ৪ ওভারে ২ মেডেন, ৮ রানে ৩ উইকেট। এটাই এবারের আইপিএলে সবচেয়ে কৃপণ বোলিং।

একই সঙ্গে একটা কীর্তিও গড়ে ফেলেছেন ২৬ বছর বয়সী পেসার সিরাজ। আইপিএলের কোনো ম্যাচে প্রথম বোলার হিসেবে ২ ওভার মেডেন পেয়েছেন সিরাজ। এমন দুর্দান্ত আক্রমণের সামনে খেই হারিয়ে ফেলে কলকাতার ব্যাটসম্যানেরা। ২০ ওভার খেলেও ৮ উইকেট হারিয়ে তুলতে পেরেছে মাত্র ৮০ রান। আইপিএলে এক ইনিংসে অলআউট না হয়ে এটাই সর্বনিম্ন দলীয় ইনিংস।

default-image

১৫ তম ওভার শেষে কলকাতার স্কোর ছিল ৬ উইকেটে ৫২ রান। আইপিএলের ইতিহাসে ১৫তম ওভার শেষে কোনো দলের সর্বনিম্ন দলীয় ইনিংসও ছিল এটাই। কলকাতার হয়ে সর্বোচ্চ ৩০ রান করেন এউইন মরগান। নয় নম্বরে খেলতে নামা লাকি ফাগু‌র্সন করেন ১৯ রান। সিরাজের পর ৪ ওভারে ১৫ রান দিয়ে ২ উইকেট তুলে নেন যুজবেন্দ্র চাহাল।

বিজ্ঞাপন

কলকাতার অল্প রানের পুঁজি সহজেই টপকে গেছে বেঙ্গালুরু। ১৩.৩ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে বেঙ্গালুরু তোলে ৮৫ রান। ওপেনার দেবদূত পাড়িকাল ১৭ বলে করেছেন সর্বোচ্চ ২৫ রান। গুরকিরাত সিং ২১ রানে অপরাজিত ছিলেন। কলকাতার একমাত্র উইকেট পেয়েছেন লাকি ফাগু‌র্সন। রানআউট হয়েছেন দেবদূত। ১০ ম্যাচে ৭ জয়ে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দুয়ে আছে বেঙ্গালুরু। আর সমান ম্যাচে ৫ জয়ে ১০ পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ স্থানে কলকাতা।

মন্তব্য পড়ুন 0