বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রথম সেশনের পর দ্বিতীয় সেশনের শুরুতেও কিছুটা নিয়ন্ত্রণ দেখিয়ে আবার হারিয়ে গেছে বাংলাদেশের বোলিং।

default-image

বাংলাদেশ দলের পরিকল্পনাও প্রশ্ন তুলে দিচ্ছে এই যে, পিচটা পড়তেই কি ভুল করলেন মুমিনুলরা? মূলত টেস্টে গত কিছুদিনে নিয়মিত হতে থাকা তাসকিন আহমেদ বাংলাদেশের পেস বোলিংয়ের নেতৃত্ব দিচ্ছেন, তাঁর সঙ্গী দুই তরুণ পেসার শরীফুল ও ইবাদত।

অনভিজ্ঞ এই পেস আক্রমণের সঙ্গে একমাত্র স্পিনার হিসেবে মেহেদী হাসান মিরাজকে নিয়েছে বাংলাদেশ। এই চারজন কতটা কী করতে পারবেন, সে নিয়ে সংশয় তো আছেই, পাশাপাশি নিউজিল্যান্ডের ইনিংস এভাবে এগোতে থাকলে চার বোলারের ধকল বেড়ে যাবে অনেক। এরই মধ্যে ইনিংসে ৫৪ ওভার বোলিং করা হয়ে গেছে। ঝুঁকিটা একটু বড়ই নিয়ে ফেলল বাংলাদেশ!

default-image

ঝুঁকির দায়ই এখন মেটাতে হচ্ছে। নিউজিল্যান্ড প্রথম উইকেট হারানোর পর প্রথম এক ঘন্টা বাংলাদেশের বোলারদের দাপটের মুখে দুই ব্যাটসম্যান কনওয়ে ও ইয়াং দেখেশুনে সময়টা পার করেছেন। এরপর বলের সুইং আর বাউন্স কমেছে, পিচ শুকিয়েছে। বাংলাদেশের বোলিং তাতে ধার হারিয়েছে। নিউজিল্যান্ড পালটা দাপট দেখিয়েছে।

১৩ চারের পাশাপাশি ১ ছক্কায় ৮৮ রান নিয়ে অপরাজিত কনওয়ে। ইবাদতে বলে তাঁর চারের পরই চা বিরতির ডাক পড়েছে। ৬ চারে ৫২ রান করা ইয়াংও আউট হওয়ার পেছনে বাংলাদেশের বোলিং নয়, ফিল্ডিং। আর নিউজিল্যান্ডের দুই ব্যাটসম্যানের ভুল বোঝাবুঝি।

মিড উইকেটে ঠেলে এক রান নেওয়ার কথা ভেবেছিলেন ইয়াং, কিন্তু তাঁকে ফেরত পাঠান কনওয়ে। ইয়াং ক্রিজে ফেরার আগেই মিড উইকেট থেকে আসা থ্রো ধরে স্টাম্পের বেল ফেলে দেন লিটন দাস। ইয়াং ভেবেছিলেন, তিনি পার হয়ে গেছেন। কিন্তু রিপ্লে দেখায়, ব্যাট দাগের বাইরেই ছিল।

হয়তো এমন জুটি ভাঙতে এটুকু ভাগ্যের পরশই দরকার ছিল বাংলাদেশের।

ইয়াং আউট হতেই মাঠে নেমেছেন দুদিন আগেই বিদায়ের ঘোষণা দিয়ে দেওয়া টেলর। বাংলাদেশের বিপক্ষে এই টেস্ট সিরিজ দিয়েই লাল বলের ক্রিকেটে শেষ টানছেন টেলর। সে কারণেই, আজ তিনি মাঠে নামার সময় দর্শকের করতালিতে মুখর ছিল স্টেডিয়াম।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন