বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আর ব্যাপারটা যখন টেস্ট ক্রিকেট, সীমিত ওভারে সাদা বল আর রঙিন পোশাকের রোশনাই তখন কদিন পরপরই যেন ঝলসে দিতে চায় শত বছরের পুরোনো দুর্গটা! এরপরই আসে ভারতের ওই অস্ট্রেলিয়া সফর।

আসে সাউদাম্পটন—একঘেয়ে বৃষ্টিভেজা ইংলিশ আবহাওয়া, অপেক্ষা, ধৈর্যের চূড়ান্ত পরীক্ষা পেরিয়ে আইসিসি ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম ফাইনাল হুট করেই খুলে দেয় রোমাঞ্চের গিফট-বক্স—দেড় শ বছর ধরেই যেমনটা করে এসেছে টেস্ট ক্রিকেট।

default-image

২০২১ তো টেস্ট ক্রিকেটের নতুন ইতিহাসেরও। এবারই যে এ সংস্করণ অবশেষে দেখেছে বৈশ্বিক কোনো চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল! ২০১৫ ওয়ানডে, ২০১৯ সালের ওয়ানডে বিশ্বকাপের হৃদয়ভঙ্গের বেদনায় পোড়া কেইন উইলিয়ামসনদের হাতে অবশেষে উঠেছে একটা ‘শিরোপা’, গদা হাতে তাঁদের ছবিটা আপনাকে বলবে—মাঝেমধ্যে ‘ফার্স্ট’ হন ‘নাইস গাই’রাও!

করোনাভাইরাসের তোপে ভারত যখন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ নিয়ে যেতে বাধ্য হলো মরুর দেশে, টুর্নামেন্টের আগে হট ফেবারিট ছিল তারাই। কোহলির এ সংস্করণের অধিনায়কত্বকে বিদায় বলার ঘোষণা যেন তৈরি করেছিল নতুন এক মঞ্চ।

default-image

তবে সে মঞ্চে দাঁড়িয়ে শাহিন শাহ আফ্রিদির ফ্রন্ট ক্যামেরায় আসিফ আলী, বাবর আজম, মোহাম্মদ রিজওয়ানরা ধরা পড়লেন বিজয়-সেলফিতে। কিছুটা নিভৃতেই ব্যাক ক্যামেরায় ঠিক ধরা পড়ল না যেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের টি-টোয়েন্টি সাম্রাজ্যের ধসটা!

নামিবিয়া মনে করাল প্রায় বিস্মৃত সহযোগী দেশের বিশ্বকাপ-রোমাঞ্চ। এউইন মরগানের ইংল্যান্ডের সীমিত ওভারের ‘ডাবল’-স্বপ্ন গুঁড়িয়ে দিল ওই কিউই ‘নাইস গাই’রা, উইলিয়ামসনদের সামনে যে তখন এক বছরে দুটি আইসিসি শিরোপা জয়ের হাতছানি!

default-image

তখন কে জানত, রিকি পন্টিং, মাইকেল ক্লার্ক, জর্জ বেইলি, স্টিভেন স্মিথদের বুকের ভারটা বয়ে এনে মরুর বুকে কবর দেবেন অ্যারন ফিঞ্চ! আইপিএলে ব্রাত্য হয়ে পড়া ডেভিড ওয়ার্নার দেখাবেন ক্রিকেটীয় টিকটকের নতুন রোমাঞ্চ—যা শুধুই ক্ষণিকের বিনোদন নয়। ম্যাথু ওয়েডের ‘শেষ করা’ মনে করিয়ে দেবে, অস্ট্রেলিয়া শেষের আগে থামে না।

সেমিফাইনালে যাওয়ার পর থেকেই ফিঞ্চ বলছিলেন, তাঁদের হিসাবের বাইরে রেখেছেন সবাই। তাঁর দল দেখাল, আর যাকেই হোক না কেন, অন্তত অস্ট্রেলিয়াকে কোনো ‘বিশ্বকাপে’ হিসাবের বাইরে রাখতে নেই।

এই যে হিসাব-নিকাশ, সেটাও তো পাল্টাতে পারে কত দ্রুতই! আজিম রফিকের বর্ণবাদের অভিযোগ যখন একের পর এক ধাক্কা দিচ্ছে ইংলিশ ক্রিকেটকে, অ্যাশেজের আগে অস্ট্রেলিয়া হুট করেই টালমাটাল হয়ে পড়ল টিম পেইনের খুদে বার্তার বৃহৎ কেলেঙ্কারিতে। অধিনায়কত্ব হারানো পেইন মানসিক স্বাস্থ্যের দিকে নজর দিতে সরে গেলেন, অস্ট্রেলিয়া আবার দেখল কোনো পেসার অধিনায়ক।

সেই প্যাট কামিন্স আবার ছিটকে গেলেন দ্বিতীয় টেস্ট থেকে। অধিনায়কত্বের ভার গেল স্টিভ স্মিথের ওপর, যাঁর বল-টেম্পারিং কাণ্ডের পর দায়িত্ব পেয়েছিলেন পেইন! এই যে চক্রপূরণের ডামাডোল, এর মাঝেও থামল না অস্ট্রেলিয়া। তাদের সামনে পড়ে স্বপ্নের মতো বছর কাটানো ব্যাটসম্যান জো রুটও প্রথম দুই টেস্টে আটকাতে পারেননি অধিনায়ক রুটের ইংল্যান্ডের দুঃস্বপ্ন।

default-image

রিজওয়ানের টি-টোয়েন্টিতে এক পঞ্জিকাবর্ষে রেকর্ড-রানের বছরে রুট শেষ পর্যন্ত রেকর্ডটা গড়তে পারলে হবে নাটকীয় কিছু। বছর শেষে মেলবোর্নে রুট তাই লড়ছেন কিসের যেন আশায়, সেঞ্চুরিয়নে হয়তো কোহলি-যুগেরও নতুন মোড়ের শুরুটা হয়ে গেছে।

দাপট, প্রত্যাবর্তন, চক্রপূরণ বা দায়মোচনের মোড়কে গল্প তো হাজির হয় নাটকীয়তা নিয়েই—প্রায় পেরিয়ে যাওয়া বছরের শেষ কয়েকটা দিন দেখালেও দেখাতে পারে অমন কিছু। প্রস্তুত থাকুন, এবার না হলেও পরের বছরটা তো আছেই।

ইতিহাস থেকে আস্তাকুঁড়ে প্যাটেল

এজাজ প্যাটেলের জন্মের সময় শহরটার নাম ছিল বোম্বে। সেটা মুম্বাই হয়েছে, ভাগ্যবদলের দায় মেটাতে মা–বাবার সঙ্গে প্যাটেলকে পাড়ি জমাতে হয়েছে নিউজিল্যান্ডে। সেই মুম্বাইয়ে এসেই প্যাটেল গড়লেন অবিস্মরণীয় কীর্তি—সময়ের হিসাবে এক ইনিংসে ১০ উইকেটের যে কীর্তি ক্রিকেট দেখেছে ৭৯, ৪৩ ও ২২ বছর ব্যবধানে!

অথচ সেই এজাজ প্যাটেলই নেই নিউজিল্যান্ডের ঠিক পরের টেস্টের দলেই। দেশের মাটিতে বাংলাদেশের বিপক্ষে বিশেষজ্ঞ স্পিনারই রাখেনি কিউইরা।

নিউজিল্যান্ডে স্পিন-পতাকা উঁচিয়ে ধরার লড়াইটা চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন প্যাটেল। তবে এর আগে ২০২১-এর ডিসেম্বর তাঁকে দিয়েছে দুই রকমের অনুভূতিই!

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন