বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হেডের পজিটিভ হওয়ার খবর আসায় মেলবোর্ন থেকে সিডনিতে অস্ট্রেলিয়া দলের চার্টাড ফ্লাইট দেরি হয়। মিচেল মার্শ, নিক ম্যাডিনসন এবং জশ ইংলিসকে হেডের বদলি হিসেবে স্কোয়াডে ডেকেছে অস্ট্রেলিয়া।

স্কোয়াডে আরও খেলোয়াড় করোনায় আক্রান্ত হতে পারেন—এ শঙ্কা থেকে হেডের বদলি হিসেবে তিন ক্রিকেটারকে ডেকেছে অস্ট্রেলিয়া। ক্রিকইনফো জানিয়েছে, অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ড—দুই দলের স্কোয়াডেই করোনা থাবা বসানোয় অ্যাশেজে বাকি দুই টেস্ট মাঠে গড়াবে কি না, তা নিয়ে সন্দেহ বাড়ছে।

অস্ট্রেলিয়া দলের বাকি সব খেলোয়াড়, তাঁদের পরিবার এবং কোচিং স্টাফ পিসিআর ও র‌্যাপিড টেস্ট করিয়েছেন। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার (সিএ) এক মুখপাত্র বলেন, ‘গোটা প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবেই আমরা খেলোয়াড়, তাঁদের পরিবার ও কোচিং স্টাফদের প্রতিদিন পিসিআর পরীক্ষা করাচ্ছি। দুর্ভাগ্যজনকভাবে হেড কোভিড–১৯ পজিটিভ হয়েছেন। হোবার্টে তিনি পঞ্চম টেস্ট খেলতে পারবেন বলে আশা করা হচ্ছে।’

অস্ট্রেলিয়ার মতো ইংল্যান্ডও ভাড়া করা বিমানে সিডনি যাবে। করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে রাখতে দুই দলকে আলাদা করে পাঠানো হচ্ছে। তবে কোচ ক্রিস সিলভারউডকে পাচ্ছে না ইংল্যান্ড।

পরিবারের এক সদস্য কোভিড পজিটিভ হওয়ায় অন্তত সিডনি টেস্টে ইংল্যান্ড দলের সঙ্গে থাকতে পারছেন না সিলভারউড। এর মধ্য দিয়ে ইংল্যান্ড স্কোয়াডে মোট সাতজন করোনা পজিটিভ হলেন, তবে গত ২৪ ঘণ্টায় ইংল্যান্ডের খেলোয়াড়েরা পিসিআর টেস্টে নেগেটিভ হন।

আইসিসির ম্যাচ রেফারি ডেভিড বুনও পজিটিভ হওয়ায় সিডনি টেস্টে থাকতে পারছেন না। নিউ সাউথ ওয়েলসে শুক্রবার পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ২১ হাজার।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন