অস্ট্রেলিয়া শঙ্কায় টি–টোয়েন্টির সিংহাসন হারানোর

ইংল্যান্ডে সময়টা ভালো যাচ্ছে না ওয়ার্নারদের
ইংল্যান্ডে সময়টা ভালো যাচ্ছে না ওয়ার্নারদেরছবি: রয়টার্স
বিজ্ঞাপন

সিরিজ তো অস্ট্রেলিয়া প্রথম দুই ম্যাচ হেরেই খুইয়ে ফেলেছে। এরপরও আজ তৃতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচটির গুরুত্ব দুই দলের কাছেই আছে। সাউদাম্পটনে ম্যাচটি হারলেই শীর্ষস্থান হারাবে অস্ট্রেলিয়া। আর অস্ট্রেলিয়াকে টপকে এক নম্বরে উঠে যাবে ইংল্যান্ড।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজটি শুরুর আগে সর্বশেষ ১০টি টি-টোয়েন্টির নয়টিতেই জয় পেয়েছে অস্ট্রেলিয়া। গত মে মাসে তারা প্রথমবারের মতো উঠেছিল টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে। কিন্তু ইংল্যান্ডে গিয়ে টানা দুই ম্যাচে হেরে গেছে অ্যারন ফিঞ্চের দল। প্রায় দুই বছরের মধ্যে এই প্রথম টানা দুটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ হারল অস্ট্রেলিয়া। তবে টানা দুটি হারের পরও নিজেদের খেলার ধরন না বদলানোর কথাই বলেছেন অস্ট্রেলিয়ার অলরাউন্ডার অ্যাস্টন অ্যাগার।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

সিরিজের শেষ ম্যাচের আগের সংবাদ সম্মেলনে অ্যাগার বলেছেন, ‘(টানা দুটি ম্যাচ হেরে যাওয়া) দুঃখজনক। সিরিজ হারাটা অবশ্যই বেদনাদায়ক। কিন্তু আমরা জানি আমাদের দলটি খুবই ভালো। সত্যিকার অর্থেই টি-টোয়েন্টিতে আমরা ভালো দলে।’ শীর্ষস্থান হারানোর প্রসঙ্গটি এলে অ্যাগার বলেছেন, ‘র‌্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বর দল হতে পারাটা গর্বের বিষয়। এমন একটি দলের অংশ হতে পারাটাও গর্বের।’

তৃতীয় টি-টোয়েন্টির আগে শীর্ষস্থান ধরে রাখার বিষয়টি অস্ট্রেলিয়ার খেলোয়াড়দের মাথায় থাকবে জানিয়ে অ্যাগার বলেছেন, ‘এটা অবশ্যই একটি অনুপ্রেরণা। কিন্তু যেকোনো ম্যাচই আমরা জিততে চাই। এক নম্বর দল হওয়ার পেছনে আমাদের সব ম্যাচ জেতার এই ইচ্ছার ভূমিকা আছে। আর গত ১৮ মাসে আমরা বেশ ধারাবাহিকও ছিলাম। আমাদের সেভাবেই খেলে যেতে হবে।’

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

প্রথম দুটি ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার হেরে যাওয়ার ধরন দেখে অনেকেই বলছেন, এটা করোনার কারণে অনেক দিন ক্রিকেটের বাইরে থাকার প্রভাব। প্রথম ম্যাচে তো বেশির ভাগ সময়ই ম্যাচে এগিয়ে ছিল ফিঞ্চের দল। রান তাড়া করতে নেমে শেষ দিকে এসে ব্যাটিংয়ে ধস নামায় খুব কাছে গিয়েও ম্যাচটি হারতে হয়েছে অস্ট্রেলিয়াকে। আর দ্বিতীয় ম্যাচে ইংল্যান্ড ছড়ি ঘোরালেও শেষ দিকে ভালো বোলিং করতে পারলে ফল অন্যরকমও হতে পারত।

এই দুটি ম্যাচ নিয়ে অ্যাগারের বিশ্লেষণটা এ রকম, ‘আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে স্রোতে গা ভাসিয়ে দেওয়ার কোনো বিষয় নেই। এত দিন পর খেলতে নেমে আমরা প্রথম ম্যাচে ভালো বোলিং করেছি। ব্যাট হাতেও শুরুটা ভালো করেছি। ছোট একটা ধসের কারণে ভুগেছি আমরা। কিন্তু ম্যাচটি জয়ের খুব কাছে চলে যেতে পেরেছি। শেষ দুই ওভারের আগে দ্বিতীয় ম্যাচেও আমরা ঠিক পথেই ছিলাম।’

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

প্রথম দুই ম্যাচ নিয়ে ইংল্যান্ড এখন আর ভাবছে না। ২০১২ সালের পর আর টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে উঠতে না পারা ইংল্যান্ড তৃতীয় ম্যাচটিও জিততে মরিয়া। শীর্ষস্থানে ওঠার স্বপ্নের কথাটা ইংলিশ ব্যাটসম্যান ডেভিড ম্যালান একটু ঘুরিয়েই বললেন, ‘আমি মনে করি না সিরিজটি আমরা এক, দুই বা তিন নম্বর দল হওয়ার জন্য খেলতে নেমেছি। আমরা প্রতিটি সিরিজই জিততে চাই। জিততে চাই প্রতিটি ম্যাচ। কিন্তু শেষ ম্যাচটি জিতে অস্ট্রেলিয়াকে আরও চাপে খেলতে পারলে এবং শীর্ষে উঠে সিরিজ শেষ করতে পারাটা তো অসাধারণ ব্যাপার হবে।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন