বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

তবে এর আগে সকালটা অ্যান্ডারসনেরই ছিল। প্রথম দিনটিকে পুরোপুরি নিজেদের করে নিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ডকে ১৮৫ রানে গুটিয়ে দেওয়ার পর ব্যাট হাতে ১ উইকেটে ৬১ রান করেছে তারা। মনে হচ্ছিল, ওয়ার্নারের উইকেট হারালেও স্মিথ-লাবুশেনদের কল্যাণে দ্বিতীয় দিনে বেশ ভালো সংগ্রহের পথেই এগোবে অস্ট্রেলিয়া। সেটা হয়নি।

অ্যান্ডারসনের সঙ্গে ওলি রবিনসন আর মার্ক উড মিলে অস্ট্রেলিয়ার ইনিংসে রাশ টেনে ধরেছিলেন। দিনের শুরুতেই বাটলারের হাতে ক্যাচ বানিয়ে নাইটওয়াচম্যান নাথান লায়নকে ফেরান রবিনসন। সদ্যই টেস্ট র‍্যাংকিংয়ের শীর্ষে ওঠা ব্যাটসম্যান লাবুশেনকেও বেশিক্ষণ টিকতে দেননি গতির ঝড় তোলা উড। জো রুটের হাতে ক্যাচ দেওয়ার আগে মাত্র ১ রান করেন এই ব্যাটসম্যান।

default-image

দলের ১১০ রানের মাথায় মাত্র ১৬ রান করে অ্যান্ডারসনের বলে বোল্ড হন স্টিভেন স্মিথ। অন্য প্রান্তে একের পর এক ব্যাটসম্যান বিদায় নিলেও এক প্রান্ত শক্ত হাতে আগলে রেখেছিলেন ওপেনার মার্কার হ্যারিস। ট্রাভিস হেডের সঙ্গে গড়ে তোলেন ৬১ রানের জুটি।

সে জুটি ভাঙতে এগিয়ে আসেন রবিনসন। রুটের হাতে ক্যাচ দেওয়ার আগে হেড ২৭ রান করেন। হেড যাওয়ার পর হ্যারিসও বেশীক্ষণ টিকতে পারেননি। ১৮৯ বলে হ্যারিসের ৭৬ রানের লড়াকু ইনিংসটা শেষ হয় অ্যান্ডারসনের বলে।

default-image

শেষদিকে এসে অধিনায়ক প্যাট কামিন্স আর মিচেল স্টার্কের কল্যাণে আড়াই শ ছাড়ানো অস্ট্রেলিয়া থামে ২৬৭ রানে এসে। লিড নেয় ৮২ রানের।

ইংল্যান্ডের ক্ষণিকের স্বস্তি মিটে যায় স্টার্ক বল হাতে নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই। পরপর দুই বলে ওপেনার জ্যাক ক্রলি আর ডেভিড মালানকে তুলে নেন এই বাঁহাতি পেসার। স্কট বোল্যান্ড তুলে নিয়েছেন হাসিব হামিদ আর জ্যাক লিচকে। ইনিংস মেরামতের দায়িত্ব এখন যথারীতি অধিনায়ক জো রুটের হাতে, সঙ্গী ওপেনার বেন স্টোকস। ৩১ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে দিন শেষ করেছে ইংল্যান্ড। তারা পিছিয়ে আছে ৫১ রানে।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন