জাদেজার কনকাশন বা মাথায় আঘাতজনিত বদলি নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।
জাদেজার কনকাশন বা মাথায় আঘাতজনিত বদলি নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।ছবি: এএফপি

কনকাশন বা মাথায় আঘাতজনিত বদলি এর আগেও দেখেছে ক্রিকেট। কিন্তু এতটা বিতর্ক আর কোনো কনকাশন বদলি নিয়ে সম্ভবত হয়নি! ঘটনাটা কাল অস্ট্রেলিয়া-ভারতের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে। শেষ পর্যন্ত ভারতের ১১ রানে জয়ের ম্যাচে বিতর্ক ছড়িয়েছে দলটির বোলিংয়ের সময়, অলরাউন্ডার রবীন্দ্র জাদেজার ‘কনকাশন’ বদলি হিসেবে লেগ স্পিনার যুজবেন্দ্র চাহালকে নামানোয়।

ভারত নিয়মের মধ্যে থেকেই সবকিছু করেছে। ম্যাচ রেফারি ডেভিড বুনও ভারতের যুক্তি মেনেই বদলিটা করতে দিয়েছেন। কিন্তু নিয়ম মানলেও ভারত নিয়মের ফাঁকটা কাজে লাগিয়ে ম্যাচ বের করে নিয়েছে কি না, সেটিই বিতর্কের মূল বিষয়। কাল ম্যাচের পরই সাবেক ভারতীয় স্পিনার প্রজ্ঞান ওঝা বলেছেন, প্রতিটি নিয়মেরই ফাঁক আছে, ভারত আজ এটার ফায়দা নিয়েছে। আর ভারতের সাবেক ব্যাটসম্যান ও বর্তমানে ধারাভাষ্যকার সঞ্জয় মাঞ্জরেকারও বলছেন, ‘আইনের ফাঁক খোঁজায় আমরা ওস্তাদ!’  

এদিকে নতুন খবর, এই সিরিজেই আর খেলা হচ্ছে না জাদেজার। সেটা কনকাশন নাকি তাঁর হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটের কারণে, তা নিয়ে সংশয় থাকলেও বিসিসিআই জানাচ্ছে, কনকাশনের কারণেই জাদেজাকে পর্যবেক্ষণে রাখা হচ্ছে। জাদেজার বদলে শার্দুল ঠাকুরকে দলে নিয়েছে ভারত।

বিজ্ঞাপন

ক্যানবেরায় কাল এক কনকাশন বদলিতে ভারতের দুই দিকেই লাভ হলো আর কী! আগে ব্যাট করা ভারতের হয়ে সাতে নেমে ২৩ বলে ৫ চার ১ ছক্কায় ৪৪ রান করে অপরাজিত ছিলেন জাদেজা। ইনিংসের ১৪তম ওভারে ৯২ রানে ৫ উইকেট হারানো ভারতের স্কোর যে শেষ পর্যন্ত ১৬১ গেছে, সেটি জাদেজার ওই ইনিংসের সৌজন্যেই। কিন্তু ইনিংসের শেষ ওভারে বল লাগে জাদেজার মাথায়।

মিচেল স্টার্কের করা ওভারটির দ্বিতীয় বলটি জাদেজার ব্যাটের কোনায় লেগে তারপর লাগে হেলমেটে। সেই বলে ১ রান নেন জাদেজা। সে সময় কোনো চিকিৎসকও মাঠে জাদেজাকে দেখতে আসেননি। এরপর শেষ তিন বলে দুটি চারসহ ৯ রানও নিয়েছেন। অবশ্য মাথায় বল লাগার আগে ইনিংসের শেষ দিকেই স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল, জাদেজা হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটে ভুগছেন।

কিন্তু ম্যাচের বিরতিতে জানা যায়, জাদেজার কনকাশন হয়েছে। ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি ম্যাচের পর জানান, জাদেজা বিরতিতে জানিয়েছেন তাঁর মাথা ‘ঝিমঝিম’ করছে। সে কারণে তাঁর কনকাশন বদলি হিসেবে চাহালকে নামানো। সেটি হয়েছে যথাযথ নিয়ম মেনে ম্যাচ রেফারির অনুমতি নিয়েই।

সেই চাহালই ম্যাচে ৪ ওভারে ২৫ রান দিয়ে নিয়েছেন ৩ উইকেট। তা-ও উইকেটগুলো কার? অধিনায়ক ও ওপেনার অ্যারন ফিঞ্চ, অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিংয়ের বড় ভরসা তিনে নামা স্টিভ স্মিথ ও উইকেটকিপার ম্যাথু ওয়েড। ম্যাচসেরাও হয়েছেন চাহালই!

কনকাশন অনেক সময় মাথায় আঘাত লাগার কয়েক মিনিট, কয়েক ঘণ্টা এমনকি কয়েক দিন পরেও ধরা পড়ে। কিন্তু এখানে জাদেজার সত্যিই কনকাশন হয়েছে নাকি হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটের কারণে খেলতে পারেননি, সে নিয়ে সংশয় এখনো যায়নি। তাঁকে সে সময় মাঠে কোনো ডাক্তার দেখতে যাননি কেন, তা নিয়েও কথা উঠেছে।

default-image

অস্ট্রেলিয়ার আপত্তি আরেকটি জায়গায়। কনকাশন বদলির ক্ষেত্রে একই ধরনের খেলোয়াড় নামানোই নিয়ম। কিন্তু অলরাউন্ডার জাদেজার বদলে স্পেশালিস্ট স্পিনার চাহালকে বোলিংয়ের সময় নামানো নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

বিজ্ঞাপন

ম্যাচের বিরতিতে এটি নিয়ে অস্ট্রেলিয়া কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গারের বচসা হয়েছে ম্যাচ রেফারির সঙ্গে। অস্ট্রেলিয়ার অলরাউন্ডার মইজেস হেনরিকেস তো বলেই দিয়েছেন, এটা কি ‘লাইক ফর লাইক’ বা একই ধরনের খেলোয়াড় বদলি ছিল? গত অ্যাশেজে অস্ট্রেলিয়ান দলও কনকাশন বদলি করেছে। তখন মাথায় আঘাত পাওয়া স্টিভ স্মিথের বদলে ঠিকই আরেক ব্যাটসম্যান মারনাস লাবুশেনকে নামিয়েছে অস্ট্রেলিয়া।

ম্যাচের পর এ নিয়ে বিতর্কে কথা বলেছেন ভারতীয় অনেক ক্রিকেটারও। সনি স্পোর্টস নেটওয়ার্কের অনুষ্ঠান ‘এক্সট্রা ইনিংসে’ সঞ্জয় মাঞ্জরেকারের কথা, ‘এখন এটার পর কনকাশন বদলির ক্ষেত্রে অনেক ভাবনাচিন্তা করা হবে। পুরো ধারণাটা নিয়েই চিন্তা করতে হবে। কারণ আইন তৈরি হয় ভালো উদ্দেশ্য নিয়েই কিন্তু আমরা সবাই নিজেদের সুবিধার জন্য সেটার ফাঁক বের করায় ‘ওস্তাদ।’ ভারত আইনটার ফায়দা নিয়েছে কি না, আমরা জানি না। তবে এখানে আইসিসির আরও ভালোভাবে নজর দেওয়া উচিত, যাতে একটা দল খুব বড় সুবিধা পেয়ে না যায়।’

জাদেজার মাথায় বল লাগার পর কোনো ফিজিও বা চিকিৎসক কেন যাননি, সেটিও মাঞ্জরেকারের চোখে ‘প্রোটোকল ভাঙা।’

মন্তব্য করুন