এই করোনার মধ্যে আইপিএল কেন? প্রশ্ন ভারতের অলিম্পিকজয়ী শুটারের।
এই করোনার মধ্যে আইপিএল কেন? প্রশ্ন ভারতের অলিম্পিকজয়ী শুটারের।ছবি: বিসিসিআই

করোনাভাইরাস সংক্রমণে ভারতে স্বাস্থ্য খাতের কঙ্কাল বেরিয়ে এসেছে। ভারতের হয়ে অলিম্পিকে ব্যক্তিগত ইভেন্টে একমাত্র সোনাজয়ী শুটার অভিনব বিন্দ্রার মতে, করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ে ভারতের স্বাস্থ্যব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। সংবাদমাধ্যম ‘ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস’-এ লেখা কলামে আইপিএল নিয়েও নিজের মতামত জানিয়েছেন বিন্দ্রা। করোনা সংক্রমণে ভারতের যখন দিশেহারা অবস্থা, তখন দেশটির ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) আইপিএল আয়োজন নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন ২০০৮ অলিম্পিকে ১০ মিটার এয়ার রাইফেলে সোনাজয়ী সাবেক এ শুটার।

default-image

ভারতে এখন করোনা সংক্রমণ ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। অনেক হাসপাতালেই শয্যা খালি নেই। গুরুতর অসুস্থ যেসব রোগী হাসপাতালে ভর্তি হতে পারছেন, তাঁদের অনেককেই আবার পড়তে হচ্ছে অক্সিজেন-সংকটে। ভারতে গত বছরের সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সংক্রমণের প্রথম ঢেউ চূড়ান্ত পর্যায়ে ছিল। তখনো রোগী শনাক্তের সাপ্তাহিক সর্বোচ্চ গড় ছিল ৯৩ হাজারের আশপাশে। কিন্তু এখন পরিস্থিতি একেবারেই নিয়ন্ত্রণের বাইরে।

দেশটির কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্যমতে, গত শনিবার থেকে গতকাল রোববার পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে নতুন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন প্রায় সাড়ে তিন লাখ, যা যেকোনো দেশে এক দিনে সর্বোচ্চ রোগী শনাক্তের নতুন রেকর্ড। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্যমতে, গত শনিবার থেকে গতকাল রোববার পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ৭৬৭ জনের। এ নিয়ে ভারতে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা দুই লাখের কাছাকাছি হলো।

বিজ্ঞাপন

দেশটিতে করোনায় ভোগান্তির যখন এই ভয়াবহ অবস্থা, তখন সেখানেই জৈব সুরক্ষিত পরিবেশের মধ্যে চলছে ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্ট আইপিএল। অভিনব বিন্দ্রা এর সমালোচনা করে কলামে লেখেন, ক্রিকেটার এবং অফিশিয়ালরা তো বধির কিংবা অন্ধ নয়, যে তাদের জৈব সুরক্ষিত পরিবেশের বাইরে কী ঘটছে, সেটা তারা জানে না কিংবা টের পাচ্ছে না। ‘ক্রিকেটার এবং অফিশিয়ালরা জৈব সুরক্ষিত পরিবেশের মধ্য থেকে বধির কিংবা অন্ধের মতো আচরণ করতে পারে না যে বাইরে কী ঘটছে সেটা তারা জানে না কিংবা টের পাচ্ছে না। আমি তো দেখছি, আইপিএলের ম্যাচগুলো যখন হচ্ছে, তখন স্টেডিয়ামের বাইরে অ্যাম্বুলেন্সগুলো রোগী নিয়ে হাসপাতালে ছুটছে। জানি না টিভিতে কেমন কাভারেজ দিচ্ছে, তবে আপাতত এসব নিয়ে একটু চুপচাপ থাকাই ভালো। যেকোনো উৎসবের আবহ নিয়ে খুব কম হইচই হওয়া উচিত, সেটি সমাজের বর্তমান অবস্থার প্রতি সম্মান দেখিয়েই করা উচিত’—কলামে লেখেন অভিনব বিন্দ্রা।

আইপিএলের এবারের মৌসুম শুরুর আগে দেবদূত পাড়িক্কাল ও অক্ষয় প্যাটেলের মতো ভারতের স্থানীয় ক্রিকেটাররা কোভিড-১৯ পজিটিভ হয়েছেন। রবিচন্দ্র অশ্বিনের মতো তারকা আইপিএল ছেড়ে নিজের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছেন। অস্ট্রেলিয়ান পেসার অ্যান্ড্রু টাই দেশে ফিরে যাওয়ার আবেদন করেছেন নিজের ফ্র্যাঞ্চাইজির কাছে। এ ছাড়া অ্যাডাম জাম্পা ও কেন রিচার্ডসনও নাকি দেশে ফিরে যেতে চান। অভিনব বিন্দ্রা তাঁর কলামে লিখেছেন, ‘খেলোয়াড়দের বুঝতে হবে তারা কতটা ভাগ্যবান যে এই পরিস্থিতির মধ্যেও আইপিএলে খেলার সুযোগ পাচ্ছে।’

করোনা সংক্রমণের মাঝে সবার প্রতি সহমর্মিতা দেখানোর আবেদন করলেন ৩৮ বছর বয়সী সাবেক এ শুটার, ‘আমরা যদি সবাই সবার প্রতি দয়া ও সহমর্মিতা দেখাই, তাহলে ব্যক্তি ও জাতি লাভবান হবে। এটা সহজ হবে না। কারণ আমরা জানি মহামারি সহসাই কাটবে না।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন