আইপিএলে মাঠে জমজমাট লড়াই চললেও বিতর্কের শেষ নেই। বিশেষ করে পাতানো খেলা ও জুয়া নিয়ে অভিযোগ বেড়েই চলছে। কিছুদিন আগে এই আইপিএলের জুয়ায় হেরেই আত্মহত্যা করেছিলেন এক ডাববিক্রেতা। এ ছাড়া জুয়ায় জড়িত থাকার অভিযোগে কিছুদিন আগে বিভিন্ন প্রদেশ থেকে কয়েকজনকে গ্রেপ্তারও করেছে পুলিশ। এবার সে তালিকায় উঠে এল রঞ্জি ট্রফি খেলা মুম্বাইয়ের সাবেক এক ক্রিকেটারের নাম—রবিন মরিস। ওডিশার হয়েও প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট খেলেছেন তিনি। খেলেছেন আইসিএলেও। আইপিএল নিয়ে জুয়াড়ি চক্রে জড়িত থাকার অভিযোগে এই মরিসকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

default-image

মুম্বাইয়ের উত্তর-পশ্চিমা এলাকা ভারসোভায় থাকেন সাবেক এ ক্রিকেটার। ভারসোভা পুলিশ সংবাদমাধ্যমকে জানায়, ইয়ারি সড়কে তাঁর বাসায় আইপিএল নিয়ে জুয়ার কার্যক্রম চলে—সুনির্দিষ্ট এই অভিযোগের তথ্য-প্রমাণ তাদের কাছে ছিল। তার বাসায় অভিযান চালিয়ে আরও দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘আইপিএলের এক ম্যাচে বাজির টাকা নেওয়ার সঙ্গে জড়িত রবিন মরিস।’

বিজ্ঞাপন

৪২টি প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলা রবিনের বাসা থেকে তাঁর ল্যাপটপ ও মুঠোফোন জব্দ করা হয়। আদালত তাঁদের আপাতত পুলিশের হেফাজতে রেখেছেন। গত বছর ম্যাচ পাতানো নিয়ে আল-জাজিরার চালানো ‘স্টিং অপারেশন’-এ উঠে এসেছিল রবিনের নাম। ২০১৬ ও ২০১৭ সালে শ্রীলঙ্কায় অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের বিপক্ষে সিরিজে উইকেটের চরিত্র বদলে দেওয়ার অভিযোগও উঠেছিল তাঁর বিপক্ষে। ম্যাচ পাতানো ও জুয়ায় জড়িত থাকায় তিনি এ কাজ করেছিলেন বলে তখন অভিযোগ তুলেছিল আইসিসি। এ জন্য এক মাঠকর্মীকে নাকি ঘুষও দিয়েছিলেন রবিন। গত বছর তাঁর বিরুদ্ধে অপহরণের অভিযোগও উঠেছিল।

রবিনের সঙ্গে গ্রেপ্তার হওয়া বাকি দুজন ধীরেন্দ্র কুলকার্নি ও রোহিত বাবু ভিমানা। রবিনের বাসায় জুয়ার চক্র বসে, এ তথ্যের ভিত্তিতে চালানো অভিযানে তাঁকে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করে ভারসোভা পুলিশ। রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু-সানরাইজার্স হায়দরাবাদ ম্যাচ নিয়ে জুয়া চালাচ্ছিলেন তাঁরা। ল্যাপটপ ও মুঠোফোনের পাশাপাশি নগদ নয় হাজার রুপিও রবিনের বাসা থেকে জব্দ করেছে পুলিশ।

১৯৯৫ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত খেলেছেন রবিন মরিস। ৫১টি লিস্ট ‘এ’ ম্যাচ খেলা সাবেক এই ক্রিকেটার আল-জাজিরার স্টিং অপারেশনে ভালোই জড়িয়ে পড়েছিলেন। পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার হাসান রাজার সঙ্গে একটি ভিডিওতে দেখা গিয়েছিল তাঁকে। ছদ্মবেশী সংবাদকর্মীর সঙ্গে টি-টোয়েন্টি ম্যাচ পাতানো নিয়ে কথা বলছিলেন সেই ভিডিওতে। রবিন পরে অবশ্য বলেছিলেন, এক সিনেমায় অডিশন দেওয়ার জন্য ভিডিওতে অংশ নিয়েছিলেন তিনি।

মন্তব্য পড়ুন 0