বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

প্রাইম ব্যাংকের বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল ইসলামের করা ওভারের দ্বিতীয় বলটি উড়িয়ে মারার চেষ্টা করেন সাব্বির। কিন্তু টাইমিংয়ে গড়বড় হওয়ায় বল যায় শর্ট কাভারে। কিন্তু অনেক উঁচুতে ওঠা বলটি তালুবন্দী করতে ব্যর্থ হন মুমিনুল। টেস্ট অধিনায়কের মিস ফিল্ডিংয়ের সুযোগে দৌড়ে রান নেওয়ার চেষ্টা করেন সাব্বির-রকিবুল জুটি।

কিন্তু দ্রুত রান নেওয়ার চেষ্টায় উল্টো রানআউটের সুযোগ সৃষ্টি হয়। স্ট্রাইক প্রান্তে মুমিনুলের থ্রো থেকে যখন প্রাইম ব্যাংকের উইকেটকিপার মোহাম্মদ মিঠুন স্টাম্প ভেঙে দেন, তখন রকিবুল ক্রিজের বাইরে থাকায় তাঁকে রানআউট ঘোষণা করেন আম্পায়ার।

default-image

রকিবুল অবশ্য সঙ্গে সঙ্গে আম্পায়ারের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ করেন। তাঁর দাবি, মিঠুন স্টাম্প ভাঙার আগেই গ্লাভস ফসকে বল মাটিতে পড়ে গেছে। এ নিয়ে দুই আম্পায়ার সৈয়দ মুজাহিদুজ্জামান ও শাফিন শরিফের সঙ্গে বাগ্‌বিতণ্ডায় জড়ান রকিবুল। সঙ্গে যোগ দেন সাব্বির। শেষ পর্যন্ত ৬ বল খেলে ৩ রান করা রকিবুলকে হতাশ হয়েই মাঠ ছাড়তে হয়। ড্রেসিংরুমে ফেরার পথে নিজের হেলমেট খুলে লাথি মেরে ফেলে দেন রূপগঞ্জের এই ব্যাটসম্যান।

দলীয় ২০ রানের সময় রকিবুল আউট হলে দ্বিতীয় উইকেটের পতন ঘটে রূপগঞ্জের। এরপর দ্রুতই ড্রেসিংরুমে ফিরেছেন নাঈম ইসলাম ও সাব্বির। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত রূপগঞ্জের হয়ে ব্যাটিং করছেন সাকিব আল হাসান ও চিরাগ জানি।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন