আকরাম-নাঈমুররা খেলেছিলেন প্রেসক্লাবের সামনে

বিজ্ঞাপন
default-image

২১ বছর আগে প্রেসক্লাবের সামনে জড়ো হয়েছিলেন দেশের সেরা ক্রিকেটাররা। রাজনৈতিক দল বা বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনগুলো যেমন বিভিন্ন দাবি-দাওয়া আদায়ে আন্দোলনের জন্য প্রেসক্লাবের সামনের রাস্তা বেছে নেন, ক্রিকেটাররাও ঠিক তেমনটিই করেছিলেন। তাদের দাবি ছিল খুবই মৌলিক, ক্রিকেট মৌসুমে দ্রুততম সময়ে ঘরোয়া লিগ শুরু করা। এবং খেলার জন্য বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের অধিকার আদায় করা। 

ক্রিকেটাররা সেদিন প্রেসক্লাবে হাজির ছিলেন ক্রিকেটের পোশাকে। সঙ্গে ছিল প্যাড-ব্যাট-গ্লাভস। বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম নিয়ে ফুটবল ও ক্রিকেটের দ্বন্দ্ব তখন ছিল দেখার মতো। নির্দিষ্ট সময় পর পর ঘুরেফিরে ক্রিকেট ও ফুটবল পেত এই মাঠের স্বাদ। কিন্তু নির্ধারিত সময়েও ক্রিকেটকে মাঠ বুঝিয়ে না দেওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন তারা। মাঠ পাওয়ার দাবিতে আকরাম খান, আমিনুল ইসলাম, মিনহাজুল আবেদীন, নাঈমুর রহমানদের প্রেসক্লাবের সামনের রাস্তায় ক্রিকেট খেলার সে দৃশ্য হয়তো অনেক ক্রিকেটপ্রেমীরই স্মৃতিকে নাড়া দেয়।

১৯৯৮ সালে বাংলাদেশ টেস্ট মর্যাদা পায়নি। ক্রিকেটের এত চাকচিক্য, এত শান-শওকত তখনো হয়নি। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশ তখন খুব নিয়মিত ছিল না। তাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে জাতীয় দলের তারকাদের খুব বেশি আয়-রোজগার ছিল না। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট—জাতীয় লিগ, বাংলাদেশ লিগ কিছুই চালু হয়নি। তখন দেশের ক্রিকেটারদের আয়ের সবচেয়ে বড় উৎস ছিল ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগ। তার আগে দলবদল ছিল খেলোয়াড়দের রোজগার নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে। সেই দলবদল নিয়ে টাল-বাহানাই ক্রিকেটারদের ঠেলে দিয়েছিল আন্দোলনের দিকে। 

সেবার লিগ শুরু হওয়া নিয়ে দেখা দিয়েছিল অনিশ্চয়তা। ঢাকা মহানগর ক্রিকেট কমিটি বা সিসিডিএম কিছুতেই দলবদলের তারিখ ঘোষণা করছিল না। আর দলবদলের তারিখ ঘোষণা না হওয়া মানেই খেলোয়াড়দের আর্থিক অনিশ্চয়তা। ক্রিকেটারা ধৈর্য হারিয়ে বেছে নিয়েছিলেন রাজপথের আন্দোলন। বাংলাদেশ কেবল নয়, ক্রিকেট ইতিহাসেই সেটি ছিল বিরল এক ঘটনা। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমেও যথেষ্ট গুরুত্ব পেয়েছিল ক্রিকেটারদের সেই আন্দোলন।

এখনকার বোর্ড পরিচালক আকরাম-নাঈমুরদের আজ নিশ্চয়ই মনে পড়ছে সে দিনটির কথা।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন