আঠারো বাঁচিয়েছে ক্যারিয়ার, হেলমেট বাঁচিয়েছে জীবন

বিজ্ঞাপন
default-image

শ্যানন গ্যাব্রিয়েলের ঘণ্টায় ৯০ মাইলের বাউন্সারটা এসে লাগল একেবারে মাথায়। ভাগ্য ভালো হেলমেট ছিল! অ্যান্ডি বালবার্নি তবু ধপাস করে বসে পড়লেন উইকেটে। দারুণ খেলছিলেন। গ্যাব্রিয়েলের আগের ওভারেই প্রায় একই রকম বল গ্যালারিতে উড়িয়ে পাঠিয়েছেন। কিন্তু এবার পুলটা ঠিকমতো হলো না। শটের ব্যাকরণ পরে বোঝা যাবে, বালবার্নি ঠিক আছেন তো! না, ঠিক নেই। উইকেট ছেড়ে বেরিয়ে আসতে হলো তাঁকে। ত্রিদেশীয় সিরিজের উদ্বোধনী ম্যাচে যখন এই ঘটনা, বাংলাদেশ তখন বেশ দূরে। গ্রামের এক মাঠে খেলছে প্রস্তুতি ম্যাচ। তবু ক্লনটার্ফের এই ঘটনার খবর ঠিকই চলে এল হিলস ক্রিকেট ক্লাবের মাঠে।

ক্রিকেট যে প্রাণসংহারী খেলাও হতে পারে, ফিলিপ হিউজের সেই ঘটনা চোখে আঙুল তুলে দেখিয়েছে। যতই খেলোয়াড়েরা একে অন্যের বিপক্ষে জান লড়িয়ে দেন, খেলা তো শেষ পর্যন্ত খেলাই। আয়ারল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচে বালবার্নি এমনভাবে আহত হওয়ার পর ক্যারিবীয় খেলোয়াড়দের মধ্যেই যেমন দেখা দিয়েছিল বেশি দুশ্চিন্তা। মাথায় বাউন্সারের ছোবলে প্রয়াত হওয়ার আগে যে হেলমেট পরে খেলতেন হিউজ, বালবার্নিও সেদিন একই ক্রীড়াসামগ্রী প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানের হেলমেট পরে খেলছিলেন। এখন অবশ্য সব হেলমেটেই সুরক্ষাব্যবস্থা বাড়ানো হয়েছে।

তা হলেও মাথায় এমন আঘাত সয়ে মাঠে নামতে সাহস লাগে। বালবার্নি সেদিন আবারও ড্রেসিংরুম ছেড়ে দলের প্রয়োজনে মাঠে নেমেছিলেন। আগের ২৮ রানের সঙ্গে ১ রান যোগ করে ফিরেছেন। কিন্তু তাঁর এই এক রান সিংহ-সাহসের সমান।

আইরিশ এই ব্যাটসম্যান এমনিতেই বেশ কিছুদিন ধরে আছেন আলোচনায়। ৯ বছর আগে অভিষেক হলেও তাঁর চেহারা প্রায় ভুলেই গিয়েছিল সবাই। গত বছর জানুয়ারি থেকে নিজেকে নতুন করে চিনিয়েছেন। এই সময় প্রায় ৫০ গড়ে ওয়ানডে রান করে চলেছেন। ক্যারিয়ারের চার সেঞ্চুরির প্রত্যেকটিই ২০১৮ জানুয়ারির পর থেকে। মাথার সেই ধাক্কার পাল্টা জবাব দিয়েছেন গত ম্যাচে ১৩৫ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলে। আফগানিস্তানের বিপক্ষে দুই মাস আগেই খেলেছেন অপরাজিত ১৪৫ রানের ইনিংস।

default-image

দলের জন্য বালবার্নি কতটা অন্তঃপ্রাণ, তা বোঝা যাবে সেদিন ম্যাচ শেষে তাঁর একটা উক্তি থেকে। ঠিকঠাক আছেন কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে বলেছিলেন, ‘আমি ঠিকই আছি। হেলমেটটা যে ঠিকমতো তার কাজটা করেছে, এতে ভাগ্যবান মনে হচ্ছে নিজেকে। তবে আমি আসলে বেশি বিরক্ত হচ্ছি ভেবে, ৪০ মিনিটও ব্যাটিংটা করতে পারলাম না!’

ঠিক এ কারণে ফিরতি ম্যাচে ১২৪ বলে ১৩৫ রানের ইনিংস খেলার পরও অতৃপ্ত। ৩২৭ করেও জেতা না গেলে নিজে এত বড় ইনিংস খেলে কি আর খুশি থাকা যায়!

ব্যাটিং-কীর্তন তো জানলেনই, বালবার্নি কিন্তু বোলিং জানেন, উইকেটকিপিংও। অলরাউন্ডার কাকে বলে! ২৮ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যান আজ বাংলাদেশের বিপক্ষে হুমকি হয়ে দেখা দিতে পারেন। তবে বাংলাদেশি সমর্থকদের প্রার্থনা না শুনে যদি শেষমেশ দারুণ একটা ইনিংস খেলেও ফেলেন, বালবার্নির জন্য একটা হাততালি দিতে ভুলবেন না।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন