আফ্রিদিকে (বাঁয়ে) আউট করে ক্ষমা চাইছেন বোলার।
আফ্রিদিকে (বাঁয়ে) আউট করে ক্ষমা চাইছেন বোলার। ছবি: এএফপি

পাকিস্তান সুপার লিগে কালকের ম্যাচটি ছিল ডেভিড ভিসেময়। প্রথমে ব্যাট করে মাত্র ২১ বলে ৪৮ রান তুলে লাহোর কালান্দার্সকে ১৮২ রান এনে দিয়েছেন। বল করতে এসেও দাপট দেখিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার অলরাউন্ডার। ৪ ওভারে মাত্র ২৭ রান দিয়ে নিয়েছেন ৩ উইকেট। ম্যাচ সেরা বেছে নিতে একটুও কষ্ট হয়নি কারও। কিন্তু সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নজর দিলে বিভ্রান্ত হতে পারেন যে কেউই।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও পাকিস্তানের পত্রিকাগুলো মেতেছে হারিস রউফকে নিয়ে। ২৮ বছর বয়সী এই পেসারও খারাপ করেননি কাল। প্রথম এলিমিনেটরে শেষ ওভারে এন্তার রান দিয়ে দলকে বিপদে ফেলে দেওয়ার দায় গতকাল মিটিয়েছেন। মুলতান সুলতানসের বিপক্ষে ৪ ওভারে মাত্র ৩০ রান দিয়েই নিয়েছেন ৩ উইকেট। তবে এ বোলিং নয়, তাঁকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নায়ক বানিয়ে দিয়েছে মাঠের অন্য কাণ্ড। গতকাল মুলতানের শহীদ আফ্রিদিকে আউট করে ক্ষমা চেয়েছেন এই বোলার।

বিজ্ঞাপন

গতকাল প্রথমে ব্যাট করে ১৮২ তুলেছিল লাহোর। জবাবে ১৯.১ ওভারেই অলআউট হয়ে যায় মুলতান। গুটিয়ে যাওয়ার আগে ১৫৭ রান তুলতে পেরেছিল দলটি। ২৫ রানে মুলতানকে হারিয়ে আগামীকালের ফাইনালে উঠে গেছে লাহোর। কাল করাচি কিংসের বিরুদ্ধে শিরোপা লড়াইয়ে নামবেন তামিম ইকবালরা। তার আগপর্যন্ত আলোটা সম্ভবত রউফের ওপরই থাকবে। পাকিস্তানের মানুষের আবেগে নাড়া দেওয়ার মতোই ছিল ঘটনাটি।

গতকাল রান তাড়া করতে গিয়ে কাঁপছিল মুলতান। ১৪তম ওভারেই ৫ উইকেট হারিয়ে মাত্র ১১৬ রান তুলেছিল দলটি। রাইলি রুশোকে চতুর্থ বলে রউফ ফেরানোর পরই নেমেছিলেন আফ্রিদি। ৩৮ বলে ৬৭ রান দরকার ছিল মুলতানের। একটি আফ্রিদিসুলভ ইনিংসই তখন বাঁচাতে পারত সুলতানদের। কিন্তু সেসব আলোচনার আর আলোর মুখ দেখা সম্ভব হয়নি। প্রথম বলেই আফ্রিদিকে স্তব্ধ করে দিয়েছেন রউফ। মাত্র উইকেটে আসা এক ব্যাটসম্যানের জন্য নিখুঁত এক বল। ঘণ্টায় ১৪৫ কিলোমিটার গতিতে ছুটে আসা ইনসুইং ইয়র্কার। বলটা দেখারও সুযোগ পাননি আফ্রিদি। কিছু বুঝে ওঠার আগেই দেখেন স্টাম্প ভেঙে পড়েছে।

default-image

আফ্রিদির মতো এক কিংবদন্তিকে আউট করেই উল্লাসে ফেটে পড়ার কথা ছিল রউফের। গত বিগ ব্যাশ দিয়ে আচমকা আলোচনায় আসা এই পেসারের জন্য আফ্রিদিকে আউট করা যে কত বড় ঘটনা, সেটা বোঝা গেছে তখন। আউট করেই উল্টো দুই হাত উঁচু করে ক্ষমা চেয়ে নিয়েছেন আফ্রিদির কাছে। প্রায় নিশ্চিত হয়ে যাওয়া জয়ের আনন্দে ছুটে আসা সতীর্থদের অভিবাদন গায়ে মাখতে মাখতেই কিছুটা অপরাধীর মতো ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছিলেন রউফ, যা দেখে ধারাভাষ্যকারের বিস্ময়, ‘এ তো দুর্দান্ত এক বল করেছ, কেন ক্ষমা চাইছ!’

ক্যারিয়ারটা একটু দেরিতেই শুরু হয়েছে রউফের। ২৬ বছর বয়সে প্রথম টি-টোয়েন্টি খেলেছেন। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে অভিষেকও ২৭ বছরে। গত বিগ ব্যাশে আচমকা মেলবোর্ন স্টার্স ডাক দিয়ে বসে তাঁকে। গতির ঝড়ে অস্ট্রেলিয়া মাতিয়ে পাকিস্তান দলেও ডাক পেয়েছেন। গত জানুয়ারিতে বাংলাদেশের বিপক্ষে আন্তর্জাতিক অভিষেক হয়ে গেছে তাঁর। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের স্বাদ পাওয়ার পরও আফ্রিদির প্রতি মুগ্ধতা কাটেনি তাঁর। ম্যাচ চলার সময়ে ধারাভাষ্যকার এ নিয়ে জিজ্ঞাসা করেছিলেন রউফের কাছে। কেন করেছিলেন এ কাজ? ‘উনি সিনিয়র খেলোয়াড়, আমি আগে থেকেই ভেবে রেখেছিলাম, আজ শহীদ ভাইকে আউট করলে এটা করব।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0