সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে নিজের অবস্থান জানিয়েছেন আফ্রিদি। পাকিস্তানের সাংবাদিক নায়লা ইনায়েতের এক ভিডিও ক্লিপে আফ্রিদিকে বলতে শোনা গেছে, ‘তালেবান ক্ষমতায় এসেছে এতে কোনো সন্দেহ নেই। কিন্তু তারা ইতিবাচক মানসিকতা নিয়ে এসেছে। তারা নারীদের কাজ করতে দিচ্ছে। তারা নারীদের রাজনীতিতে ঢোকার সুযোগ করে দিচ্ছে। তারা ক্রিকেটকে সমর্থন দিচ্ছে...এবং আমি বিশ্বাস করি তালবান ক্রিকেট খুব পছন্দ করে।’

আফ্রিদির মতো অতীতে এমন সমর্থন ইমরান খানের মুখে শোনা গিয়েছিল। গত জুলাইয়ে, আফগানিস্তান তখনো তালেবান দখলে যায়নি, সে অবস্থাতেও ইমরান বলেছিলেন, তালেবান ‘কোনো সৈন্য দল’ নয়, বরং সাধারণ নাগরিক। তাঁর সীমানায় ৩০ লাখ আফগান শরণার্থী আছেন, যাদের অধিকাংশ পশতু। তালেবান এই জাতিগোষ্ঠীর। এ কারণে তালেবানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আগ্রহী হননি তিনি।

পিবিএস নিউজ আওয়ারের কাছে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, ‘এখানে ৫ লাখ লোক ক্যাম্পে আছে। ওখানে ১ লাখ লোক ক্যাম্পে। তালেবান কোনো সৈন্যবাহিনী নয়, তারা সাধারণ নাগরিক। এই ক্যাম্পে যদি কিছু নাগরিক থাকে, পাকিস্তান কীভাবে তাদের খুঁজবে? আপনি কীভাবে তখন একে আশ্রয়স্থল বলবেন?’

আগস্টে প্রকাশ্যেই তালেবানের আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখলের পক্ষে কথা বলেছেন। ইংল্যান্ডে উচ্চশিক্ষা নেওয়া ইমরান বলেছেন ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের শিক্ষা বন্ধ করে ‘অন্য দেশের সংস্কৃতি থেকে আফগানিস্তানকে মুক্তি’ দিয়েছে তালেবান!

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন