আবির্ভাবেই চমকে দিয়েছিলেন মোস্তাফিজ। ভারতকে ঘরের মাঠে সিরিজ হারানো, ২০১৬ বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে পাঁচ উইকেট প্রাপ্তি—তাঁর কাটারের মায়াজাল তখনো বিভ্রান্তি ছড়াতো। আইপিএলে তাঁকে দলে নিয়েছিল সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। ইংরেজি অতটা ভালো বলতে পারতেন না, কিন্তু দলের সেরা বোলিং অস্ত্রকে তো ব্যবহার করতে হবে। তাঁর সামর্থ্যের সবটুকু পাওয়ার জন্য অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার আর কোচ টম মুডি উদ্যোগী হয়ে বাংলা ভাষা শেখা শুরু করে দিয়েছিলেন, যেন মোস্তাফিজের সঙ্গে সহজে ভাব বিনিময় করা যায়।

default-image

আইপিএল শিরোপা জেতার পরই মোস্তাফিজ গিয়েছিলেন ইংল্যান্ডে। সাসেক্সের হয়ে টি-টোয়েন্টি লিগে খেলতে গিয়ে প্রথম ম্যাচেই ৪ উইকেট। চোট সে যাত্রা শুরুতেই থামিয়ে দিলেও মোস্তাফিজকে ঘিরে তুমুল আগ্রহ ছিল। এ কারণে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বাংলা ভাষায় পোস্ট করেছে সাসেক্স। আইপিএলের দলগুলোও তাই করেছে। গতবার রাজস্থান রয়্যালসে ছিলেন মোস্তাফিজ, ফ্র্যাঞ্চাইজিটি নিয়মিত সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বাংলায় পোস্ট করত।

হায়দরাবাদ, মুম্বাই ইন্ডিয়ানস, রাজস্থান ঘুরে মোস্তাফিজ এবার দিল্লিতে। ওদিকে বহু বছরের সম্পর্ক শেষে এবার হায়দরাবাদ ছেড়েছেন ওয়ার্নার। যোগ দিয়েছেন দিল্লিতে, মোস্তাফিজের দলেই। এ দুজনের কারণে দিল্লিতেও বাংলা ভাষার ‘প্রসার’ দেখা গেল। কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিপক্ষে খেলতে নেমেছিলেন মোস্তাফিজ-ওয়ার্নাররা। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সে ম্যাচের আগে একটা ভিডিও পোস্ট করে দিল্লি ক্যাপিটালস। সেখানে দেখা যাচ্ছিল, ওয়ার্নার বলছেন, ‘হেই বাডি (বন্ধু)! হাউ আর ইউ? কেমন আছ? আমি তোমাকে ভালোবাসি! গুড টু সি ইউ (তোমাকে দেখে খুশি হলাম)।’ কাকে উদেশ্য করে বলা, সেটা ভিডিওতে তাঁকে না দেখেও বোঝা যাচ্ছিল।

৪ ম্যাচে ২ জয় পাওয়া দিল্লির পরের ম্যাচ আগামীকাল। রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর বিপক্ষে সে ম্যাচের আগে আজ অনুশীলনে নেমেছেন মোস্তাফিজ-ওয়ার্নাররা। অনুশীলনে দুজনে মিলে ছবি তুলেছেন। সে ছবি টুইটারে পোস্ট করেছেন মোস্তাফিজ নিজেই। সে সঙ্গে ওয়ার্নারকে বার্তা পাঠিয়েছেন, ‘আমিও তোমাকে ভালোবাসি, ডেভিড ওয়ার্নার।’ বার্তাটা বাংলায় বলে আপাতত পড়তে গুগল ট্রান্সলেটরের সহযোগিতা লাগতে পারে ওয়ার্নারে। কে জানে কয় দিনের মধ্যে হয়তো বাংলা পড়তেও শিখে যেতে পারেন ওয়ার্নার।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন