default-image

দুজন যে একেবারেই কোনো ম্যাচে মুখোমুখি হননি, ব্যাপারটা তেমন নয়। ২০১০ এশিয়া কাপে শ্রীলঙ্কার ডাম্বুলায় মুখোমুখি হয়েছিল ভারত-পাকিস্তান। ভারতের হয়ে খেলতে নেমেছিলেন কোহলি, পাকিস্তানের হয়ে শোয়েব আখতার।

সে ম্যাচে ভারত জিতলেও কোহলি তেমন কিছুই করতে পারেননি। সাঈদ আজমলের বলে বোল্ড হওয়ার আগে ২৭ বলে ১৮ রান করেছিলেন। শোয়েবের বিপক্ষে খেলা হয়নি সেদিন তাঁর। তবে তাতে জয় পেতে সমস্যা হয়নি ভারতের। ১ বল হাতে রেখেই ৩ উইকেটে জিতেছিল তারা।

default-image

সে ম্যাচ নিয়ে বছর পাঁচেক আগে এক সাক্ষাৎকারে কিছু কথা বলেছিলেন কোহলি। ২০১৭ সালে ‘ব্রেকফাস্ট উইদ চ্যাম্পিয়নস’ অনুষ্ঠানে সে ম্যাচে শোয়েবের বোলিংয়ের প্রশংসাই করেছিলেন কোহলি, ‘আমি কখনো শোয়েব আখতারের বল খেলিনি। কিন্তু ডাম্বুলায় আয়োজিত সেই ম্যাচে তাঁর প্রতিপক্ষ একাদশেই ছিলাম। আউট হয়ে গিয়েছিলাম তাই তাঁর বল খেলা হয়নি। কিন্তু ওদিন বল করা দেখে মনে হয়েছিল দারুণ ছন্দে আছেন এ বয়সে এসেও। আমার মনে হয়েছিল, শোয়েবের সেরা সময়ে কোনো ব্যাটসম্যানই তাঁর মুখোমুখি হতে চাইতেন না।’

সে কথার সূত্র ধরেই সেদিন নিজের বক্তব্য দিয়েছেন শোয়েব আখতার।

default-image

আইপিএল উপলক্ষে ক্রীড়া ওয়েবসাইট স্পোর্টসক্রীড়ার এক সাক্ষাৎকারে কোহলির মন্তব্যের জবাবে শোয়েব বলেন, তিনি কোহলির সময় নিয়মিত খেললে কোহলি এত রান পেতেন না, ‘বিরাট মানুষ হিসেবে অনেক ভালো, অনেক বড় ক্রিকেটার সে। ওর মতো বড় খেলোয়াড়দের মুখ থেকে এমন বড় প্রশংসা শুনতে ভালোই লাগে। আমি সেটার জন্য ওকে ধন্যবাদ জানাই। তবে, আমি কোহলির বিপক্ষে নিয়মিত খেললে ও এত বেশি রান করতে পারত না। তবে যত টুকু রান করত, সেটাও সুন্দরভাবেই করত। দেখে মনে হতো যে না, ও আসলেই রান করার জন্য পরিশ্রম করছে। আমি বল করলে ওর ৫০টা সেঞ্চুরি থাকত না, ২০ থেকে ২৫টা থাকত হয়তো। কিন্তু সেঞ্চুরিগুলো দেখে মনে হতো যে না, ও আসলেই খেটে সেঞ্চুরিগুলো করেছে। বিরাটের বিপক্ষে আমি সফল হতাম।’

সেদিন কোহলির ভারতের বিপক্ষে শোয়েব ১০ ওভার বল করে ৫৭ রান দিয়ে উইকেটশূন্য ছিলেন।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন