বিশ্বকাপ ড্রয়ে ওয়েলিংটনে ম্যাচ পড়ায় ইংল্যান্ড সম্ভবত খুশিই ছিল। ওই মাঠে একটি টি-টোয়েন্টিতে তারা নিউজিল্যান্ডকে ১০ উইকেটে হারিয়েছিল ২০১৩ সালে। ম্যাচটিতে ইংল্যান্ড পেসার স্টিভেন ফিন মাত্র ১৮ রান দিয়েছিলেন ৪ ওভারে। সেই মাঠেই এবার ফিনকে পাড়ার বোলার বানিয়ে বেদম পিটিয়েছেন কিউই অধিনায়ক ম্যাককালাম। ২ ওভারেই ফিনের খরচ ৪৯ রান!
প্রথম ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার কাছে উড়ে যাওয়া, তারপর নিউজিল্যান্ড ম্যাচে লজ্জার হার। তৃতীয় ম্যাচে স্কটল্যান্ডের সঙ্গে জিতলেও ইংল্যান্ডের এবারের বিশ্বকাপ অস্তিত্ব সুতায় ঝুলছে। আগামীকাল শ্রীলঙ্কাকে হারাতে না পারলে আরও খাদে পড়বে ইংল্যান্ড। কিন্তু ম্যাচটা সেই ওয়েলিংটনে, যেখানে নিউজিল্যান্ডের কাছে কচুকাটা হওয়ার স্মৃতিটা দগদগে। শ্রীলঙ্কার কাছে ওয়েলিংটনের এমন কোনো স্মৃতি-দুঃস্মৃতি নেই। তবে ওয়েলিংটনের এ ম্যাচে তাদেরও দরকার জয়।
দু্ই দলের খেলোয়াড়দের কাছেই ম্যাচটা বড় এক পরীক্ষা। ফিনের কাছেও সম্ভবত একটু বেশিই। নিজেই বলছেন, ওয়েলিংটনের নিউজিল্যান্ড-দুঃস্বপ্ন মনে পড়লে দেয়ালে মাথা ঠোকার মতোই অবস্থা হয় তাঁর, ‘ওয়েলিংটনে নিউজিল্যান্ড ম্যাচে যা ঘটেছে, তেমন কিছু আগে কখনো হয়নি। সেদিন আমার কিছুই ঠিকঠাক হচ্ছিল না। ওটার পুনরাবৃত্তি ঠেকাতে আমাদের একটা পথ বের করতে হবে।’
এরই মধ্যে ইংল্যান্ডের কাছে স্বস্তি হয়ে এসেছেন মইন আলী। স্কটল্যান্ড ম্যাচে সেঞ্চুরি করে একটু হলেও আশার আলো জ্বেলেছেন এই ব্যাটসম্যান। তবে শ্রীলঙ্কার মতো বড় দলের সঙ্গে ঘুরে দাঁড়াতে দলে পরিবর্তন জরুরি বলে মানেন অধিনায়ক এউইন মরগান। তিন ম্যাচে মাত্র ৩০ রান করা গ্যারি ব্যালান্সের একাদশে থাকার সম্ভাবনা খুবই কম। তাঁর জায়গায় সুযোগ পেতে পারেন অ্যালেক্স হেলস ও রবি বোপারার যেকোনো একজন।
তবে স্কটল্যান্ডের সঙ্গে ১১৯ রানের স্বস্তির জয়েও সাবেক অধিনায়ক মাইকেল ভন বেশ ঝাঁজালো মন্তব্যই করেছেন এই ইংল্যান্ড দল নিয়ে। মরগানের দলকে তিনি ভারসাম্যহীন বলেই ক্ষান্ত হননি, এই দলের ভবিতব্য আগেই বলে দেওয়া যায় বলেও খোঁচা দিয়েছেন। যদিও মরগানের দাবি, তাঁর দলে ভারসাম্য আছে।
ওদিকে ‘ওয়েলিংটন যুদ্ধ’ সামনে রেখে শ্রীলঙ্কা শিবির ভ্রমণসূচি নিয়ে মহাবিরক্ত। ১৪ ও ২২ ফেব্রুয়ারি শ্রীলঙ্কা প্রথম দুটি ম্যাচ খেলেছে নিউজিল্যান্ডে। ২৬ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের সঙ্গে খেলেই আবার দৌড়াতে হচ্ছে নিউজিল্যান্ড। বৃহস্পতিবার মেলবোর্নে ৯২ রানের জয় তুলে হোটেলে ফিরতে ফিরতেই রাত হয়ে যায় অনেক। মাত্র কয়েক ঘণ্টা বিশ্রাম নিয়েই কাল সকাল আটটার মধ্যে ছুটতে হয়েছে বিমানবন্দরে।
মহারণের প্রস্তুতির জন্য হাতে আছে আজকের দিনটাই। তাই বিশ্বকাপের এই ভ্রমণসূচি নিয়ে ক্ষুব্ধ শ্রীলঙ্কান ম্যানেজার মাইকেল ডি জয়সা, ‘অস্ট্রেলিয়ায় আসার আগে নিউজিল্যান্ডে খেলাটা শেষ করে এলে আমাদের জন্য ভালো হতো। এভাবে ম্যাচের সূচি রাখা ছেলেদের জন্য ক্লান্তিকর।’
জয়সা শুধু ক্ষোভই জানাতে পারেন, লাভ তাতে কিছু নেই! এএফপি, বিবিসি, ক্রিকইনফো।

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন