default-image

বিশ্বকাপে এমনিতেই টালমাটাল অবস্থা পাকিস্তান ক্রিকেট দলের। পর পর দুই ম্যাচে হার, ম্যাচের আগে ক্যাসিনোতে যাওয়ার অপরাধে প্রধান নির্বাচকের দেশে ফেরা, শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে খেলোয়াড়দের জরিমানা—এমন অনেক সমস্যা কুরে খাচ্ছে পাকিস্তান ক্রিকেটকে। এর মধ্যে আবার এক নতুন বিতর্ক ডালপালা মেলেছে ফর্ম হারানো ব্যাটসম্যান ইউনিস খানের এক টুইটকে কেন্দ্র করে। বিশ্বকাপের পরপরই ওয়ানডে থেকে অবসরে যাবেন, কেবল খেলে যাবেন টেস্ট ম্যাচ—এমন ঘোষণাই নাকি ছিল সেই টুইটার বার্তায়। তবে সেই টুইটার বার্তা সম্পর্কে ‘কিছুই জানে না’ বলে জানিয়েছেন ইউনিস নিজে।
টুইটার প্রসঙ্গ আসায় বেশ অবাকই হয়েছেন পাকিস্তানের সাবেক এই অধিনায়ক, ‘আমি কোথা থেকে টুইট করব, টুইটারে আমার যে কোনো অ্যাকাউন্টই নেই! এমন কোনো বার্তা প্রকাশের প্রশ্নই ওঠে না। নিজের ফর্ম ফিরে পেতে কঠোর অনুশীলন করছি। অবসরের মতো ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত আমি এখনো নিইনি।’
নিজেদের প্রথম দুটি ম্যাচেই হারের মুখ দেখতে হয়েছে পাকিস্তানকে। দুটি ম্যাচে ইউনিসের ব্যক্তিগত সংগ্রহ মাত্র ছয়। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে রানের খাতাই খুলতে পারেননি তিনি। এ নিয়ে এখন তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছেন এই ব্যাটসম্যান। সাধারণ মানুষের কাছে তো বটেই, তাঁকে কথা শুনতে হয়েছে সাবেক পাকিস্তানি খেলোয়াড়দের কাছ থেকেও। সাবেক পাকিস্তানি অধিনায়ক এবং বর্তমানে ধারাভাষ্যকার রমিজ রাজা তো অবসর নেওয়ার জন্য একরকম অনুরোধই করে বসেছেন। পাকিস্তানি একটি টিভি চ্যানেলকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘ইউনিস পাকিস্তান দলকে অনেক কিছু দিয়েছে। সবকিছুর জন্য তোমাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। কিন্তু এখন সময় হয়েছে তোমার চলে যাওয়ার। দয়া করে তুমি ওয়ানডে ক্রিকেট ছেড়ে দাও।’

ভারতের বিপক্ষের প্রথম ম্যাচটিতে ইউনিসকে নামানো হয়েছিল ব্যাটিং ওপেন করতে। ব্যাপারটিতে অনেকের মতোই অবাক সাবেক পাকিস্তানি গ্রেট জাভেদ মিয়াঁদাদ। আইসিসি ওয়েবসাইটের জন্য লেখা এক কলামে তিনি তাঁর হতাশামিশ্রিত ক্ষোভ গোপন করতে পারেননি। দুষেছেন অবশ্য টিম ম্যানেজমেন্টকেই। ফর্ম নিয়ে ‘খাবি খাওয়া’ একজন ব্যাটসম্যানকে কিসের ভিত্তিতে ওপেনিংয়ে খেলতে নামানো হলো, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তিনি।
দলে জায়গা পেতে যথেষ্টই বেগ পেতে হয়েছে ইউনিসকে। বিশ্বকাপের আগে নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে সিরিজটায় বেশ ভালো করেছিলেন ইউনিস। পেয়েছিলেন একাধিক শতক। সেই ধারাবাহিকতাতেই ১৫ জনের স্কোয়াডে জায়গা করে নেন তিনি। এমনিতে ২৬৩ ওয়ানডে খেলা এ ব্যাটসম্যানের থলেতে রান জমেছে ৭২০৩। সময় ও ফর্ম—দুটিই এখন প্রতিকূলে বইছে ৩৭ বছর বয়সী এই খেলোয়াড়ের জন্য। টুইট তিনি নিজে করুন বা অন্য কেউ, অবসরের ভাবনা তাঁর মাথায় উঁকি দেওয়াটা মনে হয় খুব অস্বাভাবিক কিছু নয়। তথ্যসূত্র: এএফপি

বিজ্ঞাপন
ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন