default-image

সেশনের মাঝপথে অবশ্য তাইজুল ইসলাম বাংলাদেশের মুখে হাসি ফুটিয়েছিলেন। তাঁর বলে কট বিহাইন্ড হয়েছিলেন অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস। অন্তত আম্পায়ার সে সিদ্ধান্তই জানিয়েছিলেন। কিন্তু শরফুদ্দৌল্লাহর এই সিদ্ধান্ত দেখে সঙ্গে সঙ্গে রিভিউ নিয়েছেন ম্যাথুস। রিভিউতে দেখা যায় বল ব্যাট বা গ্লাভসের কোনো স্পর্শ পায়নি। ৩৮ রানে জীবন পান ম্যাথুস। সেশন শেষ হতে হতে সেটা ৫৪ রানে ঠেকেছে। অন্যপ্রান্তে কুশল মেন্ডিসের রানও ৫৪। তৃতীয় উইকেটে এখন পর্যন্ত ৯২ রান যোগ করেছেন দুজন।

default-image

এর আগে দিনের অষ্টম ওভারেই নাঈম বাংলাদেশকে সাফল্য এনে দিয়েছেন। তাঁর পঞ্চম বলটা ব্যাকফুটে কাট করতে গিয়েছিলেন শ্রীলঙ্কান অধিনায়ক দিমুথ করুনারত্নে (৯)। কিন্তু বলের লেংথ বুঝতে পারেননি, গতিটাও বিভ্রান্ত করেছে। জোরালো আবেদনে একটু দেরি করে সাড়া দিয়েছেন আম্পায়ার। দিনের ৪৭তম বলেই দলের সেরা ব্যাটসম্যানকে হারিয়েছে শ্রীলঙ্কা।

আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে দুই দলেরই যে কতটা আস্থার অভাব, সেটা প্রথম সেশনেই টের পাওয়া গেছে। দিমুথের ওই রিভিউয়ের আগে-পরে আরও তিনবার রিভিউ নিয়েছে দুই দল। বাংলাদেশ দুবার রিভিউ হারিয়েছে। শ্রীলঙ্কা হারিয়েছে একটি।

default-image

পঞ্চম ওভারে ওশাদা ফার্নান্দোর বিপক্ষে রিভিউ চেয়েছিলেন শরীফুল ইসলাম। পরে দেখা গেছে লেগ স্টাম্পের বেশ বাইরে পড়েছিল বল। দিনের ২৩তম ওভারে নিজের দ্বিতীয় স্পেলে বল করতে এসে আরেকটি রিভিউ নষ্ট করেছেন শরীফুল। এবার অফ স্টাম্পের বাইরে বল আঘাত হানায় নষ্ট হয়েছে রিভিউ।

বাংলাদেশের ভাগ্য ভালো রিভিউ নষ্টের এই খেলায় শ্রীলঙ্কাও যোগ দিয়েছিল। আগের ওভারেই একটি রিভিউ নষ্ট করেছেন ফার্নান্দো। নাঈম হাসানের বলে পরিষ্কার ক্যাচ দিয়েছেন উইকেটকিপারের কাছে। আম্পায়ার সঙ্গে সঙ্গে আউট দিলেও সন্তুষ্ট হননি লঙ্কান ওপেনার। রিপ্লেতে পরিষ্কার দেখা গেছে, ব্যাটের স্পর্শ নিয়েই বল লিটন দাসের গ্লাভসে গেছে।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন