হায়দরাবাদের বোলিং কোচ ডেল স্টেইনের হাতেই গড়ে উঠছেন তিনি। দক্ষিণ আফ্রিকান সাবেক ফাস্ট বোলার স্টেইন অবশ্য ভারতীয় দলে উমরানকে কীভাবে ব্যবহার করা হবে, সেটি ভারতীয় ম্যানেজমেন্টের হাতেই ছেড়ে দিয়েছেন। অনেকেই উমরানকে অনেক পরামর্শ দিচ্ছেন। কিন্তু কোচ হিসেবে স্টেইন উমরানের বোলিংয়ে খুব বেশি বদল আনতে চান না। তবে তিনি আশা করেন উমরানের সঠিক ব্যবহারই দেখবে ভারতীয় ক্রিকেট।

default-image

ছাত্রের ভবিষ্যৎ নিয়ে দারুণ আশাবাদী স্টেইন। তিনি মনে করেন উমরান যেটি শিখেছে, সেটি নিয়েই তাঁর আপাতত এগিয়ে যাওয়া উচিত, ‘এখনই অতিরিক্ত কিছু উমরানের বোলিংয়ে যোগ করার দরকার নেই। সে যেটি শিখেছে, সেটিই যথেষ্ট। সেটিই সে ভালোভাবে করুক। ওটাকেই আরও সমৃদ্ধ করুক। তবে শেখার কোনো শেষ নেই। শেখার মধ্য থেকে সেটিই করতে হবে, যেটি ওর বোলিংকে আরও কার্যকরী করে তোলে। অতিরিক্ত কিছু করতে গেলে চোটের মোকাবিলা করতে হতে পারে। বোলিং অ্যাকশনের বদলও শরীরের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে পারে।’

default-image

আইপিএলে উমরান নিয়মিতই গড়ে ১৪৫ কিলোমিটারের বেশি গতিতে বোলিং করেছেন। কয়েকটি ডেলিভারি তো ১৫০ পেরিয়ে গেছে। আইপিএলের এ মৌসুমে সর্বোচ্চ গতির বলটা উমরানই করেছেন। দিল্লি ক্যাপিটালসের বিপক্ষে ম্যাচে উমরান ১৫৭ কিলোমিটার গতিতে বোলিং করে ভীতি ছড়িয়েছেন।

স্টেইনও মনে করেন তাঁর ছাত্রকে শিগগিরই ভারতীয় দলে দেখা যাবে। তবে উমরানকে ব্যবহার করার ব্যাপারটি পুরোপুরি ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্টের ব্যাপার বলে মনে করেন সাবেক এই প্রোটিয়া ফাস্ট বোলার, ‘যে বোলার নিয়মিত ১৫০ কিলোমিটার গতিতে বোলিং করে যেতে পারে, তাঁকে যেকোনো দলই চাইবে। সে অবশ্যই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের উপযোগী ক্রিকেটার। কিন্তু ভারতীয় ক্রিকেট দল তাকে কীভাবে ব্যবহার করবে, সেটা পুরোপুরি তাদের ব্যাপার। তবে ওকে কীভাবে ব্যবহার করা যেতে পারে, সেটি ভাবা খুব গুরুত্বপূর্ণ।’

উমরানের বোলিংয়ে গতি থাকলেও সুইংয়ের দিকটি নিয়ে এখনো তাঁর কাজ করার বাকি বলে মনে করেন সবাই। স্টেইন তাঁর ছাত্রের প্রতি আত্মবিশ্বাসী। অভিজ্ঞতাই তাঁর বলে পরিবর্তন আনবে বলে মনে করেন তিনি, ‘আমি তো মনে করি উমরান যত অভিজ্ঞ হয়ে উঠবে, তার বোলিংয়ে তত পরিবর্তন আসবে। সে বিষয় সময়ের সঙ্গে সঙ্গে শিখে যাবে। তবে এক সঙ্গে সব কিছু তাকে গুলেই খাইয়ে দিতে চাইলে হিতে বিপরীত হতে পারে। সে বিষয়ে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন