বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আইপিএলে চেন্নাই সুপার কিংসের বিপক্ষে কাল উইকেট পাননি উমরান। সানরাইজার্স হায়দরাবাদের এ পেসার আগের ম্যাচে দেখিয়েছেন ঝলক। গুজরাট টাইটানসের বিপক্ষে নেন ৫ উইকেট, এর মধ্যে ৪টি উইকেটই বোল্ড। অনেকের মতেই, ওয়াকার ইউনিসের মতো স্টাম্প ছত্রখান করার প্রাকৃতিক গুণাবলি আছে উমরানের মধ্যে। তা ঘণ্টায় ১৫০ কিলোমিটারের বেশি গতিসম্পন্ন এই পেসারকে সামলে খেলার পথ কী?

স্টার স্পোর্টসকে এ প্রশ্নের সহজ উত্তর দিয়েছেন গাভাস্কার, ‘এক রান নিয়ে নন-স্ট্রাইকারের প্রান্তে যেতে হবে।’ সত্যিই তো! উমরানের বিপক্ষে একটা রান নিয়ে অন্য প্রান্তে গিয়ে দাঁড়ালেই তো বিপদ থেকে মুক্তি! কিন্তু উমরানের বিপক্ষে ওই রান নেওয়াও কি এত সহজ হবে ব্যাটসম্যানদের জন্য?

গাভাস্কার অবশ্য এ বিষয়ে পথ দেখাতে পারেননি। রান নিতে গেলে তো উমরানের বল খেলতে হবে, ওদিকে বেশ কিছু ব্যাটসম্যান কিন্তু এবার আইপিএলে মনে ভীতি নিয়ে উমরানকে খেলছেন।

ভয়ংকর গতি, ইয়র্কারে দক্ষতা এবং ভালো লাইন-লেংথের কারণে উমরানকে খেলা অনেক সময় দুঃসাধ্য হয়ে উঠছে। এবার আইপিএলে ১৫ উইকেট নিয়ে সর্বোচ্চ উইকেটশিকারির তালিকায় পাঁচে রয়েছেন জম্মু ও কাশ্মীর থেকে উঠে আসা এই পেসার। সে ক্ষেত্রে কী উপায়?

গাভাস্কার এ ক্ষেত্রে আরেকটু রসিক হয়ে উঠলেন। টেপ টেনিস ক্রিকেটে যেমনটা দেখা যায়, তেমনই এক পরামর্শ দিলেন ভারতীয় কিংবদন্তি। টেপ টেনিসে ব্যাটসম্যানরা সাধারণত স্টাম্প ঢেকে খেলেন। উমরানের বলে বোল্ড হওয়া থেকে বাঁচতে গাভাস্কারও এমন পরামর্শই দিলেন, ‘সে (উমরান) যেন স্টাম্প দেখতে না পারে। স্টাম্প ঢেকে দাঁড়াতে হবে, তাহলে বল করতে দৌড় শুরুর সময় তাকে দেখার চেষ্টা করতে হবে অফ স্টাম্প এবং লেগ স্টাম্প কোথায়।’

default-image

চেন্নাইয়ের বিপক্ষে উমরান উইকেট না পেলেও আইপিএলের এ মৌসুমে সর্বোচ্চ গতির বল করেছেন। ঘণ্টায় ১৫৪ কিলোমিটার বেগে দুটি ডেলিভারি করেন উমরান। ৪ ওভারে ৪৮ রান দিয়ে উইকেটশূন্য থাকেন সানরাইজার্স পেসার।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন