বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এখনো পর্যন্ত কোহলি আন্তর্জাতিক সিরিজ খেলেছেন ১২২টি। সিরিজসেরার পুরস্কার পেয়েছেন ১৬টি। প্রতি ৭.৬ সিরিজে একবার সেরা হয়েছেন ভারতীয় অধিনায়ক। আর টেন্ডুলকার তাঁর ২৪ বছরের ক্যারিয়ারে মোট সিরিজ খেলেছেন ১৮২টি। সিরিজসেরার পুরস্কার জিতেছেন ১৯টি। প্রতিবার সিরিজ সেরা হতে গড়ে ৯.৬টি সিরিজ খেলতে হয়েছে টেন্ডুলকারকে।

default-image

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সাকিব প্রথম সিরিজসেরা হন ২০০৯ সালের জানুয়ারিতে। ঢাকায় অনুষ্ঠিত ত্রিদেশীয় সিরিজে বাঁহাতি অলরাউন্ডার রান করেছিলেন ১৫৩, আর উইকেট নিয়েছিলেন ৫টি। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে অপরাজিত ৯২ রান তাঁর ক্যারিয়ারেই অন্যতম সেরা একটি ইনিংস। সাকিব ২০০৯ সালে চারবার সিরিজসেরা হন। ২০১০, ২০১১, ২০১২, ২০১৩ ও ২০১৪ সালে একবার করে উঠেছে সিরিজসেরার পুরস্কার। ২০১৫ ও ২০১৬ সালে বিরতি। ২০১৭ সালে একবার আর ২০১৮ সালে তিনবার সিরিজসেরা হয়েছেন সাকিব।

২০১৯ সালে বিশ্বকাপে দুর্দান্ত খেলেও টুর্নামেন্ট সেরার পুরস্কার ওঠেনি হাতে। গত বছরের শেষ দিকে পেলেন আইসিসির নিষেধাজ্ঞা। এই নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার কথা আগামী ২৮ অক্টোবর। সব ঠিক থাকলে অক্টোবর-নভেম্বর শ্রীলঙ্কা সফরেই হয়তো সাকিব ফিরবেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে। তার আগে নিজেকে প্রস্তুত করতে সাকিব দেশে ফিরছেন এ সপ্তাহে। আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে চলে যাবেন বিকেএসপিতে। যেখানে শুরু হবে তাঁর প্রত্যাবর্তনের প্রস্তুতি। দলে ফিরে সাকিব দুর্দান্ত খেললে নিশ্চয়ই আরও অনেক পুরস্কার হাতে উঠবে তাঁর। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কীভাবে দ্যুতি ছড়াতে হয়, সেটি কি আর অজানা বাংলাদেশ ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয়ে সেরা ক্রিকেটারের?

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন