বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

৬ বলে ১৮ রানের সমীকরণ নিয়ে ওভারটা শুরু করেছিল রাসেলের কলকাতা। প্রথম বলটা ফুল টস, সেই বলে লং অন দিয়ে কী বিশাল এক ছক্কাই না মারলেন রাসেল। বল আছড়ে পড়ল ৯৬ মিটার দূরে গ্যালারিতে। ৫ বলে ১২ রানের সমীকরণটা রাসেলের বিদায়ে হয়ে যায় ৪ বলে ১২। টিম সাউদি ও উমেশ যাদবরা নিতে পারলেন মোটে ৩ রান। ৮ উইকেটে ১৪৮ রানে থেমে রাসেলের কলকাতা হেরেছে ৮ রানে। আর সপ্তম ম্যাচে ষষ্ঠ জয়ে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে উঠে গেছে গুজরাট।

রাসেল বল হাতে পেয়েছিলেন গুজরাটের ইনিংসের শেষ ওভারে। ওভারের প্রথম দুই বলে রাসেল ফিরিয়ে দেন অভিনব মনোহর ও লকি ফার্গুসনকে। দুজনই ক্যাচ দিয়েছেন ডিপ মিডউইকেটে রিংকু সিংয়ের হাতে। আলজারি জোসেফ স্বদেশি রাসেলকে হ্যাটট্রিক পেতে দেননি। ১ রান নিয়ে জোসেফ প্রান্ত বদলের পর স্ট্রাইকে এসেই বাউন্ডারি রাহুল তেওয়াতিয়ার। পরের বলে আবারও বড় শট খেলতে গিয়ে সেই রিংকুর হাতেই ক্যাচ দিলেন তেওয়াতিয়া। শেষ বলে আর রিংকুকে বল ছুঁতে দেননি রাসেল। নিজের বলে ফিরতি ক্যাচ নিয়েছেন যশ দয়ালের।

default-image

শেষ ওভারে ৪ উইকেট হারানো গুজরাট ৯ উইকেটে করে ১৫৬ রান। সর্বোচ্চ ৬৭ রান এসেছে অধিনায়ক হার্দিক পান্ডিয়ার ব্যাট থেকে। তিনে নেমে ৪৯ বলে ৪ চার ও ২ ছক্কায় এই রান করেছেন পান্ডিয়া। ১৮তম ওভারে অধিনায়কের বিদায়ের পর শেষ ১৬ বলে মাত্র ১৮ রান তুলতে পারে গুজরাট।

রান তাড়ায় কলকাতার হয়ে সর্বোচ্চ ইনিংসটা রাসেলেরই। এ ছাড়া বলার মতো রান পেয়েছেন রিংকু। ২৮ বলে ৩৫ রান করেছেন এক ওভারে ৩ ক্যাচ নেওয়া খেলোয়াড় ।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন