বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ইবাদত প্রথমে ফেরালেন উইল ইয়ংকে। ৫৪তম ওভারের তৃতীয় বলে। বোল্ড করে। এর এক বল পরেই হেনরি নিকোলসের স্টাম্প দারুণ এক ইয়র্কারে ছত্রখান করে দেন তিনি। টম বান্ডেলকেও ফিরিয়েছেন তিনি এলবিডব্লুর ফাঁদে ফেলে, সেটি এক ওভার পরেই।

default-image

এ মুহূর্তে নিউজিল্যান্ডের লিডটা বড় কিছু নয়। এখান থেকে যেকোনোকিছুই হতে পারে। সুযোগ যেমন লুফে নিতে হবে, তেমনি অপব্যবহারও করা যাবে না। নইলে পরে পস্তানো অস্বাভাবাবিক কিছু না। দেখা যাবে, খুব দরকারের মুহূর্তে রিভিউ নেওয়ার সুযোগ নেই। এ কথাটা অধিনায়ক মুমিনুল হকের মনে আছে?

দ্বিতীয় সেশনে ২টি উইকেট নিলেও দুটি রিভিউ নষ্ট করেছে বাংলাদেশ। শেষ সেশনের ৮ম ওভারেও সেই একই ভুল করেছে দল! সেটি বেশ হাস্যকরই ছিল। ভিডিও রিপ্লে দেখাতেই ধারাভাষ্যকক্ষে হাসির রোল উঠল। বাংলাদেশের এবার তৃতীয় রিভিউটাও নষ্ট! নিউজিল্যান্ডের দ্বিতীয় ইনিংসে আর রিভিউ নেওয়ার সুযোগ নেই মুমিনুলের। শুধু কি তাই, রিভিউ নষ্টের এই কাটা ঘায়ে নুনের ছিটা হয়ে পড়েছে ক্যাচও, রস টেলরের!

default-image

শেষ সেশনের ১৩তম ওভারে মেহেদী হাসান মিরাজকে মিডউইকেট দিয়ে তুলে মারেন টেলর। সাদমান অবিশ্বাস্যভাবে ক্যাচটি নিতে পারেননি। বলের নিচে থেকেও হাতে রাখতে পারেননি। নিউজিল্যান্ডের প্রথম ইনিংসেও ক্যাচ ছাড়েন সাদমান। তবে টেলরের ক্যাচ ছেড়ে দেওয়ার মাশুল দিতে হতে পারে। উইকেটে স্বচ্ছন্দ হয়ে উঠছেন দেশের হয়ে শেষ টেস্ট সিরিজ খেলতে নামা টেলর। এখন লক্ষ্য, এ অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানকে ফেরানো।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন