বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বাঁহাতি স্পিনার সোফি মলিনিউর বলটায় টার্ন ছিল, সঙ্গে বাউন্স। শরীর থেকে দূরে সেটাই খেলতে গিয়েছিলেন ডানহাতি ব্যাটার রৌত। কানায় লেগে বল গেছে উইকেটকিপার অ্যালিসা হিলির কাছে। হিলি বল আকাশে ছুড়ে একদফা উদ্‌যাপন করে নিলেও বোলার মলিনিউ, স্লিপে থাকা মেগ ল্যানিংয়ের আবেদন তেমন জোরালো ছিল না। আম্পায়ার ফিলিপ গিলেস্পিও মাথা নেড়ে নাকচ করেন সে আবেদন।

তবে এর মধ্যেই আম্পায়ার ও অস্ট্রেলিয়ানদের বিস্মিত করে হাঁটা দেন রৌত। এ টেস্টে এমনিতেও ডিআরএস নেই। ফলে হাঁটা না দিলে নট-আউটই থাকতেন রৌত।

default-image

স্বাভাবিকভাবেই রৌতের এমন সিদ্ধান্তে সরব হয়েছে টুইটার। রৌত এমন ‘ওয়াক’ করলেন এমন সময়ে, যখন রবিচন্দ্রন অশ্বিন আরেকবার সামনে এনেছেন ‘ক্রিকেটের চেতনা’ বা ‘স্পিরিট অব ক্রিকেট’-এর সঙ্গে ক্রিকেটের আইনের ‘জটিল’ সম্পর্কটা।

সম্প্রতি আইপিএলে ফিল্ডারের থ্রো ব্যাটসম্যানের গায়ে লাগার পরও রান নিয়েছেন অশ্বিন ও ঋষভ পন্ত। সাধারণত এমন সময়ে ব্যাটসম্যানরা রান নেন না, যদিও ক্রিকেটের আইনে তাতে কোনো বাধা নেই। আবার থ্রো ব্যাটসম্যানের গায়ে বা ব্যাটে লেগে সীমানা পার হলে আম্পায়ারের বাউন্ডারি দেওয়ারই নিয়ম আছে।

সে ম্যাচেই আউট হওয়ার পর কলকাতার হয়ে খেলা নিউজিল্যান্ড পেসার টিম সাউদি ও ইংল্যান্ড অধিনায়ক এউইন মরগানের সঙ্গে বিতণ্ডা হয়ে গেছে অশ্বিনের। পরে টুইটারে অশ্বিন বলেছেন, নৈতিক দিক দিয়ে এগিয়ে থাকার কোনো অধিকার সাউদি বা মরগানের নেই। পন্তের শরীরে বলটা লেগেছে, সেটা জানতেন না তিনি। অবশ্য সেটা দেখতে পেলেও রানটা নিতেন তিনি।

default-image

রৌতের এই ওয়াক করা শেষ পর্যন্ত ম্যাচে কতটা প্রভাব ফেলে, সেটা নিশ্চিত নয় এখনো। বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচে এখন পর্যন্ত খেলা হয়েছে ১০১.৫ ওভার। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ভারত ৫ উইকেট হারিয়ে তুলেছে ২৭৬ রান। ওপেনিংয়ে নেমে ২১৬ বলে ২২ চার ও ১ ছয়ে ১২৭ রান করেছেন স্মৃতি মান্ধানা। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে মেয়েদের টেস্টে কোনো সফরকারী দলের ব্যাটারের এটাই এখন সর্বোচ্চ ইনিংস। মান্ধানা ভেঙেছেন ১৯৪৯ সালে ইংল্যান্ডের মেরি হাইডের অপরাজিত ১২৪ রানের ইনিংসের রেকর্ড।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন