কয়েক দিন আগেই কোয়ারেন্টিন-জটিলতায় শ্রীলঙ্কা সফর স্থগিত হয়ে গেছে বাংলাদেশের। সে সফরের জায়গায় শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট পরিকল্পনা করেছিল ফ্র্যাঞ্চাইজি টি-টোয়েন্টি আসর লঙ্কান প্রিমিয়ার লিগের (এলপিএল)। ক্রিস গেইল, ড্যারেন স্যামি, ড্যারেন ব্রাভো, শহীদ আফ্রিদি এবং বাংলাদেশের সাকিব আল হাসানের মতো তারকারাও ছিলেন এলপিএলের নিলাম-তালিকায়। কিন্তু সেই নিলামই এখন স্থগিত হয়ে গেল করোনার কারণে।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলির মধ্যে শ্রীলঙ্কা ছিল করোনা প্রতিরোধে অন্যতম সফল। ভারত, বাংলাদেশ, পাকিস্তান, নেপাল যেমন করোনা মহামারিতে বিপর্যস্ত, শ্রীলঙ্কা ছিল ঠিক উল্টো জায়গাতে। দ্বীপরাষ্ট্রটিতে করোনারোগী কিংবা করোনা মৃত্যুর সংখ্যা খুবই কম। গত ৬ মাসে শ্রীলঙ্কায় করোনায় মৃত্যু হয়েছে মাত্র ১৩জনের। করোনা রোগীর সংখ্যাও ৪,৫০০—আশপাশের দেশগুলোর তুলনায় সংখ্যাটা যথেষ্ট স্বস্তিরই ছিল।

default-image
বিজ্ঞাপন

করোনা নিয়ে শ্রীলঙ্কার স্বস্তিতে এবার ছেদ পড়ল। গত ৭২ ঘণ্টায় করোনা রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। রাজধানী কলম্বোর কাছেই একটি কারখানায় একসঙ্গে ১০০০ করোনারোগী শনাক্ত হওয়ার পর আবার নড়েচড়ে বসেছে শ্রীলঙ্কা সরকার। গত ছয় মাসে এক সঙ্গে এত মানুষের করোনা আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা আর ঘটেনি। এর ফলে নতুন করে শুরু হয়েছে লকডাউন, স্বাস্থ্যবিধিতেও আরোপ করা হয়েছে কড়াকড়ি। বিভিন্ন অনুষ্ঠানাদিও আপাতত স্থগিত করা হয়েছে। শুক্রবার এলপিএলের যে ‘প্লেয়ার ড্রাফট’ অনুষ্ঠান হওয়ার কথা ছিল, স্থগিত হয়ে গেছে সেটাও।

শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটের একজন মুখপাত্র বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানিয়েছে, ‘স্বাস্থ্য পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় খেলোয়াড় ড্রাফটের অনুষ্ঠানটি আপাতত হবে না।’ তিনি জানিয়েছেন স্বাস্থ্য পরিস্থিতির উন্নতি হলে আগামী ১৯ অক্টোবর এই প্লেয়ার ড্রাফট আয়োজনের এক সম্ভাবনা আছে।

এলপিএল এর আগে গত আগস্টে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। অনিবার্য কারণে সেটি পিছিয়ে নভেম্বরের ১৪ তারিখে শুরু হওয়ার দিন ধার্য করা হয়েছিল। পরে সেটি সেই তারিখও বদলে ২১ নভেম্বর ঠিক হয়েছে।

মন্তব্য পড়ুন 0